প্রয়াত ফুটবলের কিংবদন্তী দিয়েগো মারাদোনা। বছরের আরও এক মন খারাপ করা খবর। আগেও বারবার অসুস্থ হয়েছেন তিনি। তবে এবার হেরে গেলেন জীবনের মাঠে।

শেষের দিকে হাসপাতালে ভর্তি হতে হয়েছিল তাঁকে। প্রকাশ্যে এসেছে তাঁর শেষ সময়ের সেই ছবি।

মারাদোনা প্রেস অফিস থেকে পাওয়া এই ছবি।

মারাদোনার প্রেস অফিস থেকে প্রকাশ করা হয়েছে সেই ছবি। জানা গিয়েছে, এই ছবিটাই শেষ বার হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পর তোলা।

জানা যাচ্ছে, গত ১১ নভেম্বর সন্ধ্যে ৬টায় তাঁকে হাসপাতাল থেকে ছাড়া হয়। সেদিন তাঁকে এক ঝলক দেখার জন্যে রাস্তায় ছিল অসংখ্য ফুটবলপ্রেমী। ছিলেন অসংখ্য ফুটবলপ্রেমীর ভিড়। তবে তাঁরাও হয়তো সেদিন জানতে না যে এটাই হবে শেষ দেখা!

সপ্তাহ দুয়েক আগে বাড়িতেই হার্টঅ্যাটার্ক হয় তাঁর। রাতারাতি হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাঁকে। ব্রেনের রক্তজমাট বেঁধেছিল তাঁর। দ্রুত মারাদোনার অস্ত্রপচারের সিদ্ধান্ত নেন ডাক্তাররা।

যদিও অস্ত্রপচার সফল হয় ফুটবলের রাজপুত্রের। হাসপাতাল থেকে ছেড়েও দেওয়া হয় তাঁকে। বাড়ি ফিরে যান তিনি। কিন্তু বাড়ি ফেরার পর ফের একবার হার্ট অ্যাটাক। আর তারপরেই লড়াই শেষ।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।