মাও ঘেরাটোপে 'আসলি সিংহম' মনু মহারাজ
মাও ঘেরাটোপে 'আসলি সিংহম' মনু মহারাজ

পাটনা: দুপুরের পর থেকেই বিহার পুলিশ ও কোবরা ফোর্সের বিভাগে উতকণ্ঠা বাড়ছে। কারণ, মাওবাদী ঘেরাটোপে পড়ে গিয়েছেন মুঙ্গরের ডিআইজি মনু মহারাজ। যাঁর অদম্য সাহস ও সততার দুর্নীতির বিরুদ্ধে লড়াইয়ের উদাহরণ।

সর্বশেষ খবর, মুঙ্গের ও জামুইয়ের সীমান্তবর্তী গভীর জঙ্গলে মাওবাদীদের সঙ্গে পুলিশ ও কোবরা ফোর্সের গুলিবিনিময় চলছেই। মুঙ্গেরের ডিআইজি তথা জবরদস্ত পুলিশকর্তা মনু মহারাজ এই অভিযানে ছিলেন। তিনি এখনো নিখোঁজ। জামুই ও মুঙ্গেরের মাঝে মাওবাদী হামলার খবর পেয়ে গোপনে অভিযান চালানো হয়।

অভিযান শুরু হতেই মাওবাদীরা প্রবল প্রত্যাখান করতে থাকে। বেলা গড়িয়ে গেলেও দুপক্ষের গুলি বিনিময় চলছে। মুঙ্গের সন্ত্রস্ত। এদিকে যৌথবাহিনির সঙ্গে অভিযানে রয়েছেন মুঙ্গেরের ডিআইজি মনু মহারাজ। তিনি ঠিক কোথায় সেই খবর নেই। এর ফলে বিহার প্রশাসনে ছড়িয়েছে উদ্বেগ।

নির্ভিক ও স্পষ্টবাদীরা আইপিএস মনু মহারাজ তাঁর কর্মকাণ্ডের জন্য বিতর্কিত ও প্রশংসিত। তাঁর জীবন নিয়েই তৈরি হয় গঙ্গাজল ও সিংহম ছবি। জাঁদরেল ডিআইজি দীর্ঘসময় জঙ্গলে মাওবাদী ঘেরাটোপে আছেন।

যৌথ বাহিনি অভিযান জারি রেখেছে। আগামী ২৮ অক্টোবর বিহারের মাওবাদী উপদ্রুত তিনটি জেলা মুঙ্গের, জামুই, লক্ষ্মীসরাই তে নির্বাচন হবে। নির্বাচন বানচাল করার চেষ্টা করছে মাওবাদীরা।

অত্যন্ত স্পর্শকাতর এলাকা বলে পরিচিত এই তিন জেলার বিধানসভাগুলি। গত নির্বাচনে এখানে মাওবাদী হামলা হয়।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।