কলকাতা: দীর্ঘদিন ধরে কলকাতায় গা ঢাকা দিয়েছিল এক মাওবাদী৷ শহরের বুকেই বাড়ি ভাড়া নিয়ে ছিল বসবাস করছিল৷ পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছিল বড়বাজারে ঠিকা শ্রমিক জোগান দেওয়ার কাজ৷ অবশেষে কলকাতা পুলিশের হাতে ধরা পরে সে৷ ধৃত মাওবাদীকে ট্রানজিট রিমান্ডে নিয়ে যাওয়া হবে বিহারে৷

লালবাজার সূত্রে খবর, ধৃত মাওবাদী বিহারের বাসিন্দা৷ সুনীল কুমার নামে ওই মাওবাদী বিহারের লক্ষীসরাই জেলার বরিয়ারপুর গ্রামের স্থানীয় বাসিন্দা৷ ৩৭ বছর বয়সী সুনীলের বিরুদ্ধে সেখানে খুন, অপহরণ, তোলাবাজি, পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ সহ একাধিক অভিযোগ রয়েছে৷ ইইউএপিএ আইনেও তার বিরুদ্ধে মামলা রুজু হয়েছে৷

তারপরই সে চলে আসে কলকাতায়৷ বিগত কয়েক মাস ধরে উত্তর বন্দর থানা এলাকার স্ট্র্যান্ড ব্যাঙ্ক রোডে একটি বাড়ি ভাড়া নিয়ে আত্মগোপন করেছিল ধৃত মাওবাদী৷ জীবিকার জন্য বড়বাজারে ঠিকা শ্রমিক জোগান দেওয়ার কাজ করত সে৷ গত বুধবার রাতে হাওড়া ব্রিজ সংলগ্ন স্ট্র্যান্ড রোডের ওই বাড়িতে অভিযান চালায় কলকাতা পুলিশ৷ সেখান থেকেই সুনীল কুমার সিং নামে ওই মাওবাদীকে গ্রেফতার করে পুলিশ৷

যোগাযোগ করা হয় বিহার পুলিশের সঙ্গে৷ জানা গিয়েছে,ইতিমঝ্যেই বিহার পুলিশের একটি দল কলকাতা. এসে পৌঁছেছে৷ ধৃতকে আজ আদালেত তোলা হবে৷ ধৃত মাওবাদীকে ট্রানজিট রিমান্ডে বিহারে নিয়ে যাওয়ার আবেদন করবে তারা৷

মাস খানেক আগে ছত্তিশগড়ের বিজাপুর জেলায় মাওবাদীদের সঙ্গে সিআরপিএফের গোলাগুলিতে প্রাণ হারিয়েছেন এক কেন্দ্রীয় বাহিনীর পুলিশ৷ সেদিন ওই গোলাগুলির ঘটনাটি ভোর ৪টে নাগাদ বিজাপুর জেলার টোংগুডা-পাম অঞ্চলে ঘটেছে বলেই জানা গিয়েছে। শহিদ কেন্দ্রীয় বাহিনীর পুলিশের নাম কান্তা প্রসাদ। যিনি ১৫১ ব্যাটেলিয়নে কর্মরত ছিলেন।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও