ছবি- পিটিআই

কলকাতা: পাহাড়ে পুলিশের সঙ্গে বিমল গুরুং বাহিনীর তীব্র গুলির লড়াই৷ সেই লড়াইয়ের পর সেফ প্যাসেজ দিয়ে সিকিম পালানোর চেষ্টা করছে মোর্চা প্রধান৷ তাকে রুখতে প্রস্তুত পুলিশ৷ নবান্নে সাংবাদিক বৈঠকে এমনই জানালেন এডিজি আইন-শৃঙ্খলা অনুজ শর্মা৷

অনুজ শর্মা আরও জানান, বিমল গুরুংকে মদত দিচ্ছে মাওবাদী ও উত্তর পূর্ব ভারতের জঙ্গি সংগঠন৷ যদিও সেখানকার কোন জঙ্গি গোষ্ঠীর সঙ্গে বিমলপন্থীরা হাত মিলিয়েছে তা পরিষ্কার করেননি অনুজ শর্মা৷

পড়ুন: গুরুঙের জিএলপি ক্যাডারদের প্রশিক্ষণ দিয়েছে নাগা জঙ্গিরা

তিনি বলেন, গুলির লড়াইয়ের পর এলাকা থেকে উদ্ধার করা হয় ৬টি একে ৪৭, ৫০০ রাউন্ড গুলি ও নাইন এমএম পিস্তল৷ এর থেকেই অনুমান করা যায় কী পরিমাণ আগ্নেয়াস্ত্র মজুত করেছে বিমল বাহিনী ৷

শুক্রবার ভোররাত থেকে বিমলপন্থী ও পুলিশের গুলির লড়াইয়ে রক্তাক্ত দার্জিলিঙের লেপচা বস্তি এলাকা৷ তীব্র গুলির লড়াইয়ের পর বিমল গুরুং ফের সিকিমে ঢুকতে চাইছে৷ সেখান থেকেই ফের সে দার্জিলিংয়ে নাশকতা চালাতে পারে৷ এমনই জানিয়েছেন এডিজি আইন-শৃঙ্খলা৷

আরও পড়ুন: গুরুংকে বাঁচাতে AK 56 থেকে গুলি চালাল GLP-GLA বাহিনী

সিকিম থেকে লুকিয়ে এসে সেখানেই আত্মগোপন করেছে গুরুং৷ এমন খবর পেয়েই বিশাল পুলিশ বাহিনী এলাকা ঘিরে নেয়৷ অভিযান শুরু হতেই গুলি ছুঁড়তে শুরু করে গুরুং বাহিনী৷ পাল্টা গুলি চালায় পুলিশ৷ দুই পক্ষের সংঘর্ষে এক এএসআই শহিদ হয়েছেন৷ মৃত্যু হয়েছে এক গুরুং সমর্থকের৷ জখম আরও চার পুলিশকর্মী৷