রাঁচি: শুরু হয়ে গেল ঝাড়খণ্ড নির্বাচনের প্রত্যশিত রক্তাক্ত পর্ব। শুক্রবার গভীর রাতে লাতেহারে ভয়াবহ মাওবাদী হামলা হল। এই হামলায় এক অফিসার সহ তিন পুলিশ কর্মীর মৃত্যু হয়েছে।

ঘটনাস্থল লাতেহারের চন্দোয়া। স্থানীয় থানার কাছেই হামলা চালায় মাওবাদী স্কোয়াড। প্রবল গুলি বর্ষণ করা হয়েছে বলেই জানা গিয়েছে।

অন্তত ৭০-৮০ রাউন্ড গুলি চালিয়েছে হামলাকারী মাওবাদীরা। এই লাতেহারেই বৃহস্পতিবার ঝাড়খণ্ড বিধানসভা নির্বাচনের প্রথম জনসভা করেন বিজেপি সর্ব ভারতীয় সভাপতি ও কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ।

জনসভাতে তিনি বলেছিলেন, মাওবাদী উপদ্রুত এলাকা থেকে ঝাড়খণ্ড মুক্তি পাচ্ছে বিজেপির আমলেই। মুখ্যমন্ত্রী রঘুবর দাস এর সরকারের আমলেই এটা হচ্ছে।

অমিত শাহের জনসভার একদিনের মধ্যেই ভয়াবহ মাও হামলায় রক্তাক্ত হল লাতেহার।

জানা গিয়েছে চন্দোয়া থানা থেকে টহল দিচ্ছিল পুলিশ ভ্যান । সেটি ঘিরে নেয় মাওবাদীরা। এলোপাথাড়ি গুলি চালাতে থাকে তারা। এদিকে সশস্ত্র পুলিশ গুলি চালায়। তীব্র গুলির লড়াই হয়। পরে এক ওসি ও তিন পুলিশ কর্মীর দেহ মিলেছে।

এদিকে ঘটনাস্থলে পৌঁছে গিয়েছে বিশাল সিআরপিএফ বাহিনি ও পুলিশ। উচ্চপদস্থ পুলিশ কর্তারা উপস্থিত। পরিস্থিতি অগ্নিগর্ভ।

নির্বাচন হবে ৫ দফায়। প্রতি দফাতেই মাওবাদী হামলার আশঙ্কা প্রবল।