Rahul Gandhi

নয়া দিল্লিঃ দেশজুড়ে মারণ ভাইরাসের (Corona) তাণ্ডবে লণ্ডভণ্ড পরিস্থিতি। দিনে দিনে রেকর্ড হারে মানুষজন করোনা আক্রান্ত হচ্ছেন। থেমে নেই মৃতের সংখ্যাও। এমন উদ্বেগজনক পরিস্থিতি মোকাবিলায় বাঁধ সেধেছে দেশের বিপর্যস্ত স্বাস্থ্য পরিকাঠামো। হাসপাতালে নেই শয্যা, মিলছে না পর্যাপ্ত অক্সিজেনও। সেই ইস্যুতে ফের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে টুইট আক্রমণ রাহুল গান্ধীর। এদিন প্রধানমন্ত্রীকে করোনা চিকিৎসার জরুরি সরঞ্জাম ভেন্টিলেটরের সঙ্গে তুলনা করলেন কংগ্রেস (Congress) প্রাক্তন সভাপতি রাহুল গান্ধী।

আজ সোমবার সকালে তিনি (Rahul Gandhi) টুইটারে মূলত তিনটি বিষয়ে মোদীকে আক্রমণ করেন। ‘প্রথমত, আমজনতার সাথে সম্পর্ক নেই। দ্বিতীয়ত, তাঁদের নিজ নিজ কাজ করেন না, এবং তৃতীয়ত, যখন প্রয়োজন, তখন তাঁদের খুঁজে পাওয়া যায় না’। উল্লেখ্য, করোনা মহামারীর সূচনা পর্ব থেকেই বিরোধীদের সমালোচনার মুখোমুখি হচ্ছে কেন্দ্রীয় সরকার। সম্প্রতি কেন্দ্রের তরফে পিএম কেয়ার্স ফান্ড (PM Cares Fund) থেকে বিভিন্ন রাজ্যকে যে ভেন্টিলেটর পাঠানো হয়েছে তা অকেজো বলে দাবি করে পাঞ্জাবের ফরিদকোটের একটি হাসপাতাল। যদিও কেন্দ্রের তরফে সে অভিযোগ নস্যাৎ কর হয়। এদিন সেই ইস্যুকেই হাতিয়ার করে রাহুল গান্ধী।

প্রসঙ্গত, কংগ্রেসের প্রাক্তন সভাপতি রাহুল গান্ধী গত বৃহস্পতিবারও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে একের পর এক ইস্যুতে আক্রমণ শানিয়েছলেন। সেদিন তিনি বলেছিলেন, দেশজুড়ে করোনা মহামারী চলাকালীন ভ্যাকসিন, অক্সিজেন এবং ওষুধের পাশাপাশি নিখোঁজ রয়েছেন নরেন্দ্র মোদীও, শুধুমাত্র রয়েছে কেন্দ্রীয় ভিস্তা প্রকল্প এবং প্রধানমন্ত্রীর ছবিগুলি।

রাহুল গান্ধী হিন্দিতে এক টুইট বার্তায় সেদিন লিখেছিলেন “ভ্যাকসিন, অক্সিজেন এবং ওষুধের পাশাপাশি নিখোঁজ রয়েছেন প্রধানমন্ত্রী (Narendra Modi)। এখন শুধু এখানে এবং সেখানে রয়েছে কেন্দ্রীয় ভিস্তা প্রকল্প, ওষুধের উপর জিএসটি এবং প্রধানমন্ত্রীর ছবি”। অন্যদিকে কংগ্রেসের মুখ্য মুখপাত্র রণদীপ সুরজেওয়ালা গঙ্গায় ভাসমান মৃতদেহ নিয়ে রাহুল গান্ধীর সাথেই কেন্দ্রীয় সরকারকে তুলোধোনা করেছিলেন। তিনি হিন্দিতে এক টুইট বার্তায় গত বৃহস্পতিবার লিখেছিলেন “এই নতুন ভারতে এমন সময় এসেছে যে নদীতে ভাসমান মৃতদেহগুলিও সরকারের কাছে দৃশ্যমান নয়। লজ্জা …”।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.