স্টাফ রিপোর্টার, জলপাইগুড়ি: শ্রমিক আন্দোলনের জেরে বন্ধ হয়ে গেল এশিয়ার দ্বিতীয় বৃহত্তম চা বাগান নাগরাকাটা ব্লকের চেংমারি চা বাগান। মঙ্গলবার বিকেলে চা বাগানের গেটে তালা ঝুলিয়ে চলে যায় মালিকপক্ষ৷ এই নিয়ে ক্ষুব্ধ শ্রমিকরা বুধবার সকালে চা বাগান খোলার দাবিতে গেট মিটিং করে। এই ঘটনায় পরোক্ষ ও প্রত্যক্ষভাবে প্রায় কুড়ি হাজার শ্রমিক বিপাকে পড়েছে।

রবিবারের বদলে সোমবার ছুটি ঘোষণা করেছিল চা বাগান কর্তৃপক্ষ৷ সেই নিয়ে সোমবার সকালে বাগান কর্তৃপক্ষের সঙ্গে শ্রমিকদের গণ্ডগোল বাধে৷ একটা সময়ের পর বচসা হাতাহাতিতে পরিণত হয়৷ শ্রমিকদের হাতে আক্রান্ত হয় এক সহকারী ম্যানেজার সহ বেশ কয়েকজন তৃণমূলের শ্রমিক নেতা। ওই সহকারী ম্যানেজারকে শিলিগুড়ির একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভরতি করা হয়েছে। সেই সময় এলাকার বিধায়ক সুকরা মুন্ডা এসে দুই পক্ষের সঙ্গে কথা বলে সমস্যা মেটায়।

কিন্তু আইন শৃঙ্খলার অবনতি ও নিরাপত্তার অভাবের কারণ দেখিয়ে এদিন বিকেলে চা বাগান কর্তৃপক্ষ সাসপেনশন অফ নোটিস টাঙিয়ে বাগান ছেড়ে চলে যায়। ওই চা বাগানটিতে স্থায়ী ও অস্থায়ী শ্রমিক নিয়ে মোট পাঁচ হাজার শ্রমিক আছে৷ কিন্তু ওই চা বাগানটিতে বন্ধ ধরনিপুর, ক্যারন ও সুরেন্দ্রনগর চা বাগানের শ্রমিকেরা এসে কাজ করে তাদের সংসার চালায়।

এলাকার বিধায়ক সুকরা মুন্ডা বলেন, চা বাগান কর্তৃপক্ষ যে সিদ্ধান্ত নিয়ে তা শ্রমিক বিরোধী। তৃণমূলের ব্লক সভাপতি অমরনাথ ঝাঁ জানান, যেটা হল ঠিক হয়নি। দ্রুত চাবাগানটি খুলতে হবে। চেংমারি চা বাগানের ম্যানেজার কমলেশ ঝাঁর মতে, নিরাপত্তার অভাবের কারণে বাগান বন্ধ করা হয়েছে। মালবাজারের এসডিও-র কথায়, বাগান বন্ধের নোটিস পেয়েছি। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠিয়ে দিয়েছি।