কলকাতা: শহরের বেশকিছু দুর্গাপূজা কমিটি এবার জায়েন্ট স্ক্রিন বসানোর পরিকল্পনা নিয়েছে। যেহেতু হাইকোর্টের রায়ে পূজামণ্ডপে প্রতিমা দর্শনের জন্য দর্শক ঢোকার ব্যাপারে বেশ কিছু শর্ত আরোপ হয়েছে। রায়ে

বলা হয়েছে, বড় পুজোর ক্ষেত্রে মণ্ডপের ভিতরে ঢোকার জন্য পুজো কমিটির সদস্য ও স্থানীয় বাসিন্দা মিলিয়ে ৬০ জনের তালিকা করতে হবে। তবে একসঙ্গে ৪৫ জনের বেশি পুজো মণ্ডপে ঢুকতে পারবেন না। অন্যদিকে, ছোট পুজোর ক্ষেত্রে পুজো মণ্ডপে ঢোকার জন্য ৩০ জনের তালিকা বানাতে হবে এবং একসঙ্গে ১৫ জনের বেশি মন্ডপে থাকতে পারবেন না।

এই পরিস্থিতিতে কলেজ স্কোয়ারের পুজোর অন্যতম উদ্যোক্তা বিকাশ মজুমদার সংবাদ সংস্থাকে জানিয়েছেন, গোটা কলেজ স্কোয়ার এই দুর্গা পুজোর সময় কলকাতা পুলিশের নির্দেশ অনুসারে তালা চাবি দিয়ে বন্ধ রাখা হচ্ছে। নির্দেশ মতো ৬০ জনের তালিকা করা হয়েছে যাদের মধ্যে ৪৫জন একসঙ্গে পুজো মণ্ডপে থাকবে। তারা এই অবস্থার জন্য দুঃখিত হলেও আর কোনও বিকল্প নেই বলে জানিয়েছেন। পাশাপাশি এই উদ্যোক্তারা জানিয়েছেন, বিকল্প ভার্চুয়াল দর্শনের ব্যবস্থা করা হচ্ছে যাতে বাড়ি বসে প্রতিমা দর্শন করা যায়। তাছাড়া যাদের স্মার্ট ফোন নেই তাদের কথা চিন্তা করে তারা জায়েন্ট স্ক্রিন বসানোর ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

এদিকে ত্রিধারা সম্মিলনী পুজো উদ্যোক্তা দেবাশীষ কুমার জানিয়েছেন, যেহেতু দর্শকদের প্যান্ডেল ও প্রতিমা দর্শনের অনুমতি দিতে পারা যাচ্ছে না সেহেতু জায়েন্ট স্ক্রিন রাসবিহারী এভিনিউতে বসানোর পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। শহরের অন্যতম প্রধান পুজো সুরুচি সংঘের উদ্যোক্তা স্বরূপ বিশ্বাস জানিয়েছেন, মহামান্য হাইকোর্টের নির্দেশ অনুসারী তারা চলবেন। করোনা পরিস্থিতিতে দর্শকদের সেন্টিমেন্টের পাশাপাশি সুরক্ষার প্রটোকল এবং গাইডলাইন মেনে একটা কোন উপায় বার করা হবে।

জেলবন্দি তথাকথিত অপরাধীদের আলোর জগতে ফিরিয়ে এনে নজির স্থাপন করেছেন। মুখোমুখি নৃত্যশিল্পী অলোকানন্দা রায়।