কলকাতা: দলগত পারফরম্যান্সে ভর করে চলতি রঞ্জি ট্রফির সেমিফাইনাল পর্যন্ত পৌঁছে গিয়েছে বাংলা৷ স্বাভাবিকভাবেই শেষ চারে সেই টিম গেমেই নজর বাংলা শিবিরের৷ স্কোয়াডে শাহবাজ আহমেদ, আকাশ দীপ, নীলকণ্ঠ দাসের মতো একাধিক প্রতিভাবান তরুণ ক্রিকেটার থাকলেও বাংলা দলে তারকার অভাব নেই৷ মনোজ তিওয়ারি, অনুষ্টুপ মজুমদারের মতো অভিজ্ঞ ক্রিকেটারের পাশাপাশি ভারতীয়-এ দলের প্রায় নিয়মিত মুখ অভিমন্যু ঈশ্বরন ও ইশান পোড়েলের উপস্থিতি আলাদা করে চোখে পড়ছে৷ সবাই এক সঙ্গে না হলেও কোনও না কোনও ম্যাচে নিজেদের পারফরমান্স দিয়ে দলকে সমৃদ্ধ করেছে প্রায় প্রত্যেকেই৷ তবু সেমিফাইনালের মতো বড় মঞ্চে বাংলার টিম ম্যানেজমেন্ট আলাদা করে তাকিয়ে মনোজ তিওয়ারির দিকে৷

আরও পড়ুন: একটি হারে আতঙ্কিত নন শাস্ত্রী, ক্রাইস্টচার্চে ঘুরে দাঁড়ানোর বার্তা

এমনটা নয় যে মনোজ একার হাতে ম্যাচের রং বদলে দেবেন বলে হাপিত্যেশ করে বসে রয়েছে টিম ম্যানেজমেন্ট৷ আসলে কর্ণাটকের মতো শক্তিশালী দলের বিরুদ্ধে এমন হাই ভোল্টেজ ম্যাচে মনোজের অভিজ্ঞতা কাজে লাগাতে চাইছেন অরুণ লালরা৷ সেমিফাইনালের আগের দিন তাই টিম গেমের তত্ত্ব আওড়ালেও কোচ অরুণ লাল আলাদা করে মনোজের কথা উল্লেখ করতে ভুললেন না৷

আরও পড়ুন: র‍্যাংকিংয়ে অবস্থান ধরে রাখলেন রাহুল

সেমিফাইনালে মনোজকে কোন ভূমিকায় দেখতে চাইছেন এমন প্রশ্নের উত্তরে বাংলা কোচ স্পষ্ট জানান যে, দলের হর্তা কর্তা হলেন মনোজ৷ অরুণ লালের কথায়, ‘মনোজ দলের সঞ্চালক, ও চ্যাম্পিয়ন প্লেয়ার৷ ও ইন্ডিয়া প্লেয়ার, আদ্যান্ত পেশাদার এবং বাংলার প্রাক্তন অধিনায়ক৷ মনোজ দলের সব কিছু৷’

আরও পড়ুন: টিন-এজ সেনসেশন শেফালিতে মজে ক্রিকেটদুনিয়া

বাংলা কোচের ইঙ্গিত স্পষ্ট৷ সেমিফাইনালে মনোজের কাছ থেকে দারুণ কিছু আশা করছে দল৷ চলতি রঞ্জি মরশুমে ফর্মে রয়েছেন তিওয়ারি৷ বাংলার হয়ে সর্বোচ্চ রান এই মুহূর্তে মনোজেরই৷ ৯ ম্যাচের ১৩ ইনিংসে ৫৯.১৮ গড়ে ৬৫১ রান সংগ্রহ করেছেন তিনি৷ ১টি সেঞ্চুরি ও ৩টি হাফসেঞ্চুরি করেছেন তিওয়ারি৷ হায়দরাবাদের বিরুদ্ধে কল্যাণীতে কেরিয়ারের একমাত্র ট্রিপল সেঞ্চুরি করেছেন তিনি৷ সঙ্গত কারণেই মনোজের কাছ থেকে সেমিফাইনালে নায়কোচিত ইনিংস আশা করছে বাংলা শিবির৷ এখন দেখার, মনোজ দলের প্রত্যাশা পূরণ করতে সক্ষম হন কি না৷

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV