দেবযানী সরকার: বিজেপিতে যোগদান করে যাঁর তৃণমূলকে নাস্তানাবুদ করার কথা, সেই মুকুল রায়েরই অবস্থা ল্যাজেগোবরে৷ নোয়াপাড়ায় তৃণমূল থেকে ছিনিয়ে এনে যাঁকে তিনি প্রার্থী করবেন ভেবেছিলেন, সেই মঞ্জু বসুই তাঁকে ডজ করে আস্থা রেখেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উপরই৷

আরও পড়ুন: BreakingNews- মুকুলকে ধাক্কা দিয়ে প্রার্থী হতে অস্বীকার মঞ্জুর

আর দলের প্রাক্তন নম্বর-২ নেতার এই অবস্থা দেখে যারপরনাই উল্লসিত তৃণমূল শিবির৷ আর সেই খুশি চেপে রাখছেন না কেউই৷ নোয়াপাড়া বিধানসভা উত্তর ২৪ পরগনা জেলার অন্তর্গত৷ ওই জেলায় তৃণমূলের সভাপতির দায়িত্বে রয়েছেন খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক৷ এই খবর শুনে তাঁর প্রাথমিক প্রতিক্রিয়া, ‘‘মুকুলের গালে সপাটে চড় মেরেছেন মঞ্জু বসু৷’’

প্রসঙ্গত, এদিন বিকেলের পর থেকে যা ঘটনাপ্রবাহ, তাতে শুধু মুকুল নয় মুখ পুড়েছে বিজেপির সর্বস্তরের নেতৃত্বের৷ কারণ, কেন্দ্রীয় নির্বাচক কমিটির সম্পাদক তথা মোদী ক্যাবিনেটের অন্যতম মন্ত্রী জে পি নাড্ডার স্বাক্ষর করা বিজ্ঞপ্তিতে নোয়াপাড়া বিধানসভার জন্য মঞ্জু বসুর নাম ছিল৷ তিনি যে শেষমুহূর্তে ভোলবদল করবেন, তা কার্যত অনভিপ্রেত৷ ফলে বিজেপির নেতারা বিব্রত৷ আর সেই সুযোগেই বিজেপিকে মুকুল-কাঁটা দিয়ে বিঁধতে শুরু করেছে তৃণমূল৷

আরও পড়ুন: রোজভ্যালি কাণ্ড: ইডির জেরার মুখে তৃণমূলের মন্ত্রী-কন্যা

জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক যেমন এদিন সাফ জানালেন, মিথ্যার উপর দাঁড়িয়ে রাজনীতি করছেন মুকুল রায়৷ বিশ্ববাংলা থেকে জাগোবাংলা সব ইস্যুতেই মুকুল রায় ভিত্তিহীন অভিযোগ করছেন বলে তাঁর দাবি৷ রাজনীতিতে এসব চলে না বলেই তাঁর দাবি৷

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ