স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: আসন্ন বিধানসভা উপনির্বাচনে খড়গপুর কেন্দ্রের জন্য নির্বাচনী ইস্তেহার প্রকাশ করল তৃণমূল কংগ্রেস৷ বৃহস্পতিবার দলের জেলা সভাপতি শুভেন্দু অধিকারী যে ইস্তেহার প্রকাশ করেছেন তাতে একগুচ্ছ প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে খড়গপুরবাসীকে৷

২৫ নভেম্বর রাজ্যের তিনটি কেন্দ্রে উপনির্বাচন। উত্তর দিনাজপুরের কালিয়াগঞ্জ, নদিয়ার করিমপুর এবং পশ্চিম মেদিনীপুরের খড়গপুর সদরে উপনির্বাচনের ভোটগ্রহণ হতে চলেছে ওই দিন।এই তিন কেন্দ্রের উপনির্বাচনে পৃথক পৃথক ইস্তেহার প্রকাশের সিদ্ধান্ত নিয়েছে তৃণমূল। তারমধ্যে খড়গপুরের নির্বাচনী ইস্তেহার প্রকাশিত হল

বৃহস্পতিবার৷ বলে রাখি, পশ্চিমবঙ্গে শুধু নয়, ভারতের কোনও প্রান্তেই কোনও রাজনৈতিক দলকে উপনির্বাচনের জন্য আলাদা নির্বাচনী ইস্তাহার প্রকাশ করতে সে ভাবে দেখা যায় না। এই প্রথম তৃণমূল কংগ্রেসই উপনির্বাচনে ইস্তেহার প্রকাশ করল৷

খড়গপুর সদর থেকে তৃণমূলের প্রার্থী হয়েছেন প্রদীপ সরকার। তিনি জিতলে কি কি কাজ করবেন সেটাই ইস্তাহারে দেওয়া হয়েছে৷ পরিকাঠামো উন্নয়ন থেকে স্বাস্থ্য, পানীয় জল থেকে নিরাপত্তা ব্যবস্থা-সবেতেই ঢেলে সাজানোর প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে ইস্তেহারে৷ তৃণমূল সূত্রের খবর, প্রশান্ত কিশোরের পরামর্শেই এই অভিনব উদ্যোগ নিয়েছেন তৃণমূল৷ গত কয়েক মাসে তিন উপনির্বাচন কেন্দ্রের বিভিন্ন এলাকায় সমীক্ষা করে এলাকাভিত্তিক কিছু সমস্যা এবং সেই এলাকার প্রয়োজনীয়তা বার করেছে টিম পিকে। বিধানসভা নির্বাচনের আগে রাজ্যের ওই তিন কেন্দ্রের স্থানীয় সমস্যা ও প্রয়োজনীয়তাকে মাথায় রেখেই তৈরি হয়েছে ইস্তাহার৷

এ বার উপনির্বাচনের প্রচার নিয়েও পুঙ্খানুপুঙ্খ কর্মসূচি তৈরি করছে টিম পিকে। লক্ষ্য একটাই, শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত লড়াই জমিয়ে রাখা এবং প্রতিপক্ষকে বিন্দুমাত্র জমি না ছাড়া। খড়্গপুর এবং কালিয়াগঞ্জের মতো হারা আসনে বেশি করে জোর দেওয়া সেই স্ট্র্যাটেজিরই অঙ্গ বলে তৃণমূল সূত্রে জানা যাচ্ছে।