স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: যাদবপুর কাণ্ডে থেমে থাকল না তাঁর কলম। এর আগেও নানা অন্যায়ের প্রতিবাদে গর্জে উঠেছিল তাঁর প্রতিবাদী কলম। কবিতাই হয়ে ওঠে তাঁর প্রতিবাদের ভাষা। এবার তিনি যাদবপুরের বামপন্থী পড়ুয়াদের পক্ষে। শুক্রবার নিজের ফেসবুক দেওয়ালে কবি মন্দাক্রান্তা সেন লেখেন ‘যাদবপুর ১৯/৯/১৯’ নামের একটি কবিতা। বৃহস্পতিবার যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে বামপন্থী পড়ুয়াদের বিক্ষোভের মুখে পড়েন কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়।

অক্ষরবৃত্ত ছন্দে ৮+১০ মাত্রায় লেখা কবিতাটিতে উঠে এসেছে ছাত্র আন্দোলনের আগুন। কবিতাটিতে তিনি লেখেন:

যেভাবে আঙুল তুলে শাসাচ্ছেন জনপ্রতিনিধি
সেখানে লাঙুল তুলে সব কিছু ধ্বংস করা বিধি
যেখানে আহত ছাত্র শিক্ষাঙ্গনে নয় নিরাপদ
আক্রমণ করতে পারে অকস্মাৎ যে-কোনও শ্বাপদ

সেখানে জানি না বন্ধু আর কী কী হবে ভবিষ্যতে
ইতোমধ্যে যা ঘটেছে তাতে হোক কলরব পথে
পথে নামো পথে নামো ভুলে সব ভুল বোঝাবুঝি
আমাদের প্রতিবাদ প্রতিরোধ হোক সোজাসুজি

ভেঙে দেবো শাসকের যত উদ্ধত তর্জনী
আমাদের কলরবে ঢেকে দাও তার গর্জনই
নিরাপত্তা না থাকলে তো কিছু নেই হারাবার মতো
ভেঙে দাও মুচড়ে দাও শাসকের হাত উদ্যত

পথে নামো ছাত্রদল, তোলো জনসমুদ্রের ঢেউ
আমাদের প্রতিরোধ ভাঙতে পারবে না আজ কেউ

বোঝাই যাচ্ছে, যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়র আঙুল তুলে শাসানোকে কটাক্ষ করেছেন মন্দাক্রান্তা। তারই প্রতিফলন ঘটেছে এই কবিতায়। বিভিন্ন সময় ছাত্রদের পাশে দাঁড়িয়েছেন মন্দাক্রান্তা। প্রয়োজনে রাস্তায় নেমে প্রতিবাদ করেছেন। এর আগে প্রাথমিক শিক্ষকদের ন্যায্য দাবির আন্দোলনে সামিল হতে দেখা গিয়েছে আনন্দ পুরস্কারপ্রাপ্ত এই কবিকে। আগামী দিনেও তাঁর কলম প্রতিবাদে গর্জে উঠবে– এমনটাই মনে করে অভিজ্ঞ মহল।