ফাইল ছবি

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: এটাই নতুন নয়। এর আগেও প্রতিবাদে গর্জে উঠেছিলেন তিনি। ফের প্রতিবাদে কলম ধরলেন কবি মন্দাক্রান্তা সেন। এক সময় দেশব্যাপী অসহিষ্ণুতার জেরে সাহিত্য আকাদেমি যুব পুরস্কার ফিরিয়েছিলেন মন্দাক্রান্তা। সারা বছর সরকারের বিরধীতায় সরব হতে দেখা যায় প্রতিক্রিয়াশীল এই কবিকে। চলতি বছর আমেরিকার বঙ্গ সম্মেলনে ডাক পেয়েও ভিসা পাননি তিনি।

সেই ঘটনায় নিজের সোশ্যাল অয়াক্টিভিটিসকেই দায়ি করেছিলেন তিনি। তবু প্রতিবাদে অনড় মন্দাক্রান্তা। বৃহস্পতিবার নিজের ফেসবুক দেওয়ালে তিনি পোস্ট করেন ‘আজকে সময়’ নামের একটি কবিতা। সেই কবিতায় অস্থিত এই সময়কেই কটাক্ষ করেন তিনি। ওয়াকিবহাল মহল মনে করছে, রাজনৈতিক হানাহানি, মারের পাল্টা মার, খুন, জখম সব মিলেয়ে যেন আজকের দিনে দাঁড়িয়ে আর শান্ত থাকতে পারছে না মানুষ। আর সেই দিকটিই নিজের কবিতায় তুলে ধরেছেন মন্দাক্রান্তা। এখন চতুর্দিক হয়ে উঠেছে অশান্ত।

কবিতাটির একটি লাইনে মন্দাক্রান্তা তাই লিখেছেন– ‘আজকে শান্ত থাকা মানে দুর্বলতাই’। এমন এক অস্থির সময়ের মধ্যে আমরা ঢুকে পড়েছি, যেখানে প্রতিটা মানুষ আতঙ্কিত। মনোবল হারিয়ে যাচ্ছে প্রত্যেকের। শুধু প্রতিশোধ নিতেই মানুষ নেমে পড়েছে ময়দানে। ফলে সংগ্রামীও হয়ে উঠছে কেউ কেউ। কিন্তু সংগ্রাম করার প্রকৃত মানসিকাতা আর দুঃসাহস মানুষের মধ্যে থেকে হারিয়ে গিয়েছে। সংগ্রাম মানে যে শুধুই ‘গণসঙ্গীত’ নয়, সে দিকটিতেও খোঁচা দিয়েছেন কবি। তাঁর মতে, লড়াইয়ের মধ্যে দিয়েই মানুষ আজ খুঁজে পাচ্ছে নিজের সুখ!

৬+৬+৩ মাত্রার মাত্রাবৃত্ত ছন্দে লেখা মান্দাক্তান্তা সেনের ১৬ লাইনের প্রতিবাদী কবিতাটি একবার পড়ে নিন:

#আজকে সময়

মারের বদলা মার, প্রতিঘাতে মার তো
আর কতদিন থাকব আমরা আর্ত
মনে জোর নেই? কোনও জোর নেই শরীরে?
মিছেই আমরা যুদ্ধকাহিনি পড়ি রে, সংগ্রাম মানে নয় শুধু নয় শুধু গণসঙ্গীত
মঞ্চে দাঁড়িয়ে দুঃসাহসীর ভঙ্গি
সংগ্রাম মানে নয় জ্বালাময়ী পদ্য
সংগ্রাম মানে লড়াই অপ্রতিরোধ্য, লড়াই বিনা তো আসে না মানব মুক্তি
কতদিন নেব পিঠ বাঁচানোর সুখটি
এই দেশ থেকে দেশের শত্রু তাড়াতে
জঙ্গিবাহিনী বানাও পাড়াতে পাড়াতে, আজকে শান্ত থাকা মানে দুর্বলতাই
পাল্টা দেবোই কমরেড, তুমি বলো তাই, বলো বলো বলো পরস্পরকে বলো তাই
বলো বলো বলো নিজেই নিজেকে বলো তাই…