ফাইল ছবি

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: প্রতিবাদ করতে পিছপা হন না কবি মন্দাক্রান্তা সেন। সাধারণ মানুষের স্বার্থে তিনি রাজ্য ও কেন্দ্রীয় সরকারের সমালোচনা করেন। এর জন্য বিক্ষোভের মুখে পড়তে হয়েছে এক শ্রেণীর কাছে! তাঁদের উদ্দেশ্যে এবার বার্তা দিলেন মন্দাক্রান্তা। তিনি স্পষ্ট জানিয়ে দিলেন, কেউ যদি অন্যায়ের শিকার হলে তাঁকে ডাকলে পাশে পাওয়া যাবে।

এক সময় দেশব্যাপী অসহিষ্ণুতার জেরে সাহিত্য আকাদেমি যুব পুরস্কার ফিরিয়েছিলেন মন্দাক্রান্তা সেন। সারা বছর সরকারের বিরধীতায় সরব হতে দেখা যায় প্রতিক্রিয়াশীল এই কবিকে। চলতি বছর আমেরিকার বঙ্গ সম্মেলনে ডাক পেয়েও ভিসা পাননি তিনি। সেই ঘটনায় নিজের সোশ্যাল অয়াক্টিভিটিসকেই দায়ি করেছিলেন মন্দাক্রান্তা। কিছুদিন আগেই সল্টলেকে আমরণ অনশনকারী প্রাথমিক শিক্ষকদের মঞ্চে যোগ দেন তিনি। আর এই নিয়েই ক্ষোভের মুখে পড়েন।

বিষয়টি উল্লেখ করে কবি মন্দাক্রান্তা সেন রবিবার নিজের ফেসবুক দেওয়ালে লেখেন, “বাংলার বঞ্চিত প্রাথমিক শিক্ষকদের পাশে থাকার জন্য আমাকে যাঁরা ধন্যবাদ জানাচ্ছেন, তাঁদের জানাই, এ আমার দায়বদ্ধতা। আর তার জন্য যাঁরা আমার বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিচ্ছেন, তাঁদের বলি, কখনও কোনও অন্যায়ের শিকার হলে আমায় ডাকবেন। পাশে পাবেন।”

আন্দোলনের ফসল মিলেছে। রাজ্য সরকার বেতন বৃদ্ধিতে রাজি হয়েছে। এতে স্বাভাবিক ভাবেই খুশি প্রাথমিক শিক্ষকদের পাশাপাশি তিনিও। মন্দাক্রান্তার কথায়, “দূরে দূরে বদলি হওয়া শিক্ষকদের জেলায় ফিরিয়ে আনা হবে। গ্রেড ৩২০০ থেকে বেড়ে হল ৩৬০০। জয়ী শিক্ষকরা অনশন ও আন্দোলন প্রত্যাহার করলেন। তাঁদের অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা।”

সমাজ সচেতন এই কবির বিভিন্ন পদক্ষেপকে কুর্নিশ জানিয়েছেন প্রাথমিক শিক্ষকরা। তাঁদের একাংশের মতে, মীরাতুন নাহার, মন্দাক্রান্তা সেন এমন আরও অনেক বিশিষ্টজনেদের সমর্থন আন্দোলনকে এগিয়ে নিয়ে যেতে যাহায্য করেছে। শেষ পর্যন্ত হার মেনেছে রাজ্য সরকার। আরও একবার জয়ী হয়েছে বিপ্লব।