ম্যাঞ্চেস্টার: আজ সারারাত হয়তো দু’চোখের পাতা এক করতে পারবেন না এডেরসন মোরায়েস। তাঁর জোড়া ভুলেই মরশুমে দ্বিতীয়বার প্রিমিয়র লিগে ম্যাঞ্চেস্টার ডার্বির রং লাল। শেষবার এমনটা হয়েছিল ২০০৯-১০ মরশুমে। আর এডেরসনের জোড়া ভুলের সুযোগ নিয়ে রবিবাসরীয় ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে আকাশী ম্যাঞ্চেস্টারকে মাটি ধরালেন অ্যান্থনি মার্শিয়াল ও স্কট ম্যাকটোমিনে। যার মধ্যে দ্বিতীয়ার্ধের সংযুক্তি সময়ে প্রায় মাঝমাঠ থেকে ম্যাকটোমিনের গোলটি দেখতে হাজার মাইল পথ হাঁটা যায়।

তিনকাঠির নীচে বিপক্ষ গোলরক্ষকের ভুল সত্ত্বেও ঘরের মাঠে এদিন লাল ম্যাঞ্চেস্টারের হাই-প্রেসিং ফুটবলকে কোনওভাবেই অস্বীকার করা যায় না। বল পজেশনে পিছিয়ে থাকলেও ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে এদিন নজর কাড়ল সোল্কজায়েরের ছেলেদের প্রতিটি বলের জন্য লড়াই। ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে আগের তিনটি ডার্বিতেই শেষ হাসি হেসেছিল পেপ গুয়ার্দিওলার সিটি। পাশাপাশি লিগ কাপের প্রথম সেমিফাইনালেও ম্যান ইউ’য়ের পাড়ায় এসে দাদাগিরি দেখিয়ে গিয়েছিল আকাশী ম্যাঞ্চেস্টার।

তবে রবিবাসরীয় ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে রেড ডেভিলসদের প্রেসিং ফুটবল অন্য কিছুই বার্তা দিচ্ছিল। মার্শিয়ালের গোলের ক্ষেত্রে দিনের প্রথম ভুলটি করার আগে ড্যানিয়েল জেমস ও অ্যান্থনি মার্শিয়ালের দুটি প্রয়াস প্রতিহত করেন এডেরসন। কিন্তু ৩০ মিনিটে ব্রুনো ফার্নান্ডেজের বুদ্ধিদীপ্ত ফ্রি-কিকে ফরাসি স্ট্রাইকারের ভলি শিক্ষানবীশি ঢংয়ে ফস্কান ব্রাজিলিয়ান গোলরক্ষক। গোটা প্রথমার্ধ জুড়ে গোল লক্ষ্য করে মাত্র একটি শট নিতেই সক্ষম হন সিটি ফুটবলাররা। মার্শিয়ালের গোলে এগিয়ে থেকেই বিরতিতে যায় ইউনাইটেড।

বিরতি থেকে ফিরে এসেই সার্জিও আগুয়েরোর একটি গোল অফসাইডের কারণে বাতিল হয়। এই সময় ম্যান ইউ’য়ের পেনাল্টি বক্সে চাপ বজায় রাখে সিটি। ফিল ফোডেনের একটি শট প্রতিহত হয় ডি গিয়ার দস্তানায়। মাহরেজের ক্রস থেকে সুযগ হাতছাড়া করেন স্টার্লিং। এরইমধ্যে ভাগ্য সুপ্রসন্ন থাকায় তিনকাঠির নীচে এডেরসনের মারাত্মক ভুল সত্ত্বেও দ্বিতীয় গোল হজমের হাত থেকে বেঁচে যায় গুয়ার্দিওলার দল। এডেরসনের ভুল ট্র্যাপিংয়ের সুযোগ কাজে লাগিয়ে দ্বিতীয়বার স্কোরশিটে বনাম তুলতে ব্যর্থ হন মার্শিয়াল।

ম্যাচের শেষদিকে সিটিকে ফের চেপে ধরে ইউনাইটেড। মার্শিয়াল ভুল করলেও সংযুক্তি সময়ে এডেরসনের তৃতীয় ভুলের সুযোগ হাতছাড়া করেননি স্কট ম্যাকটোমিনে। বেঞ্জামিন মেন্ডির উদ্দেশ্যে বল ছুঁড়ে দিতে গিয়ে তা ভুল করে স্কটল্যান্ড ফুটবলারের পায়ে তুলে দেন ব্রাজিলিয়ান গোলরক্ষক। বলা ভালো এডেরসনের থ্রো দুর্দান্ত ফলো করে প্রায় মাঝমাঠ থেকে তা নিজের আয়ত্তে নেন ম্যাকটোমিনে। এরপর গোলরক্ষককে অনেকটা এগিয়ে থাকতে দেখে ৩০ গজ দূর থেকেই গোল লক্ষ্য করে শট নেন তিনি। নিশানায় অব্যর্থ ম্যাকটোমিনের দূরপাল্লার শট প্রবেশ করে জালে। হতাশায় মুখ ঢাকেন এডেরসন। ২-০ গোলে জিতে মাঠ ছাড়ে লাল ম্যাঞ্চেস্টার।

আর এই জয় ফের উসকে দিল আগামী মরশুমে তাদের চ্যাম্পিয়ন্স লিগে খেলার স্বপ্ন। কারণ চতুর্থ স্থানের দৌড়ে ফের চেলসির সঙ্গে ব্যবধান কমিয়ে আনল ম্যান ইউ। ২৯ ম্যাচে পঞ্চমস্থানে থাকা ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেডের সংগ্রহ ৪৫ পয়েন্ট। চতুর্থস্থানে থাকা চেলসির সংগ্রহে ৪৮ পয়েন্ট। একইসঙ্গে ম্যাঞ্চেস্টারের এই জয় মগডালে থাকা লিভারপুলের ২৯ ম্যাচে ৮২) জয় আরও সুনিশ্চিত করে দিল।

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV