ম্যাঞ্চেস্টার: মোরিনহো কোচ থাকাকালীন যে দলকে মাঠে ছত্রভঙ্গ দেখাচ্ছিল, নতুন কোচের অধীনে সেই ম্যাঞ্চেস্টারকে আবার ইউনাইটেড মনে হচ্ছে৷ মোরিনহোর আমলে যে ম্যান ইউ ক্রমাগত ড্র ও হারের মুখ দেখছিল, ওলে গানার সোল্কজায়ের দায়িত্ব নেওয়ার পরেই প্রিমিয়র লিগে জয়ের হ্যাটট্রিক করল তারা৷ তাও রীতিমতো দাপটের সঙ্গে৷

ওলে গানার অন্তর্বর্তীকালীন কোচ হয়ে আসার পর কার্ডিফ সিটিকে তাদের ঘরের মাঠে ৫-১ গোলে উড়িয়ে দেয় ম্যাঞ্চেস্টার৷ পরে ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে হাডার্সফিল্ডকে ৩-১ গোলে বিধ্বস্ত করে তারা৷ এবার এএফসি বোর্নমাউথকে নিজেদের মাঠে ৪-১ গোলে পরাজিত করে রেড ডেভিলসরা৷

আরও পড়ুন: ম্যান ইউয়ে সান্তা হয়ে এলেন সোল্কজায়ের

উল্লেখযোগ্য বিষয় হল কোচের সঙ্গে ঝামেলার জেরে মোরিনহোর জমানায় যে পোগবা দলে কোণঠাসা ছিলেন, কোচ বদল হতেই সেই ফরাসি তারকাই পর পর দু’টি ম্যাচে জোড়া গোল করে জেতালেন দলকে৷ বোর্নমাউথের বিরুদ্ধে ম্যাঞ্চেস্টারের অপর দু’টি গোল করেন মার্কাস রাশফোর্ড ও রোমেলু লুকাকু৷

বোর্নমাউথের বিরুদ্ধে ম্যাচ্র একেবারে শুরুতেই গোল করে এগিয়ে যায় ইউনাইটেড৷ ৫ মিনিটের মাথায় রাশফোর্ডের পাস থেকে দুরন্ত টাচে গোল করেন পোগবা৷ ৩৩ মিনিটে হেরেরার ক্রস থেকে ম্যাচে নিজের তথা দলের হয়ে দ্বিতীয় গোল করেন পোগবা৷ ৪৫ মিনিটে অ্যান্থনীর পাস থেকে গোল করে স্কোর-লাইন ৩-০ করেন রাশফোর্ড৷ প্রথমার্ধের ইনজুরি টাইমে (৪৫+২) ব্রুকসের পাস থেকে ইউনাইটেডের জালে বল জড়িয়ে ব্যবধান কমান নাথান আকে৷ প্রথমার্ধের খেলা শেষ হয় ম্যাঞ্চেস্টারের অনুকূলে ৩-১ গোলে৷

আরও পড়ুন: জয় দিয়ে নতুন কোচকে ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে স্বাগত জানাল ম্যাঞ্চেস্টার

দ্বিতীয়ার্ধে ম্যাঞ্চেস্টার আরও একটি গোল করলেও বেইলি লাল কার্ড দেখায় শেষ দশ মিনিট দশজনে খেলতে হয় ম্যাঞ্চেস্টারকে৷ ৭২ মিনিটে ম্যাচে ইউনাইটেডের চতুর্থ গোল করেন লুকাকু৷ তাঁকে গোলের পাস বাড়ান পোগবা৷ এই জয়ের ফলে ২০ ম্যাচে ম্যাঞ্চেস্টারের সংগৃহীত পয়েন্ট দাঁড়ায় ৩৫৷ তারা রয়েছে লিগ টেবিলের ছ’নম্বরে৷ পাঁচ নম্বরে থাকা আর্সেনালের থেকে তাদের ব্যবধান মাত্র ৩ পয়েন্টের৷

অন্যদিকে ক্রিস্টাল প্যালেস ও লেস্টার সিটির কাছে পর পর দু’টি ম্যাচে হারার পর প্রিমিয়র লিগে জয়ে ফিরল ম্যাঞ্চেস্টার সিটি৷ অ্যাওয়ে ম্যাচে সাউদাম্পটনকে ৩-১ গোলে হারিয়ে দেয় গুয়ার্দিওলারা৷ লিগের অপর ম্যাচে চেলসি ১-০ গোলে পরাজিত করে ক্রিস্টাল প্যালেসকে৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.