শেফিল্ড: নিশ্চিত হারের মুখ থেকে ঘুরে দাঁড়িয়ে জয়ের সম্ভাবনা তৈরি করলেও শেষমেশ শেফিল্ড ইউনাইটেডের কাছে আটকে গেল ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেড৷ প্রিমিয়র লিগে অ্যাওয়ে ম্যাচে শেফিল্ডের সঙ্গে ৩-৩ গোলের উত্তেজক ড্র করল ম্যাঞ্চেস্টার৷

একসময় ম্যাচের ৭২ মিনিট পর্যন্ত জোড়া গোলে পিছিয়ে ছিল ইউনাইটেড৷ সেখান থেকে ৭ মিনিটের ঝড়ে শেফিল্ডের জয়ের স্বপ্ন তছনছ করে দেয় রেড ডেভিলসরা৷ দু’গোল শোধ করার পরেও একটি গোল তারা চাপিয়ে দেয় হোম টিমের ঘাড়ে৷ অর্থাৎ ৭ মিনিটের মধ্যে তিনটি গোল করে ম্যাঞ্চেস্টার ম্যাচে লিড নিয়ে নেয়৷ যদিও একেবারে শেষ মুহূর্তে ম্যাচে সমতা ফেরায় শেফিল্ড৷

আরও পড়ুন: জয় দিয়ে টটেনহ্যামে যাত্রা শুরু মোরিনহোর

ম্যাচের প্রথমার্ধে ১টি মাত্র গোল হয়৷ দ্বিতীয়ার্ধে গোল হয় ৫টি৷ শেফিল্ডের হয়ে গোল করেন ফ্লেক, মউসেট ও ম্যাকবার্নি৷ ম্যাঞ্চেস্টারের হয়ে প্রতিপক্ষের জালে বল জড়ান উইলিয়ামস, গ্রিনউড ও রাশফোর্ড৷ জিতলে লিগ টেবিলের পাঁচ নম্বরে উঠে আসার হাতছানি ছিল ওলে গানারদের সামনে৷ তা না হওয়ায় পয়েন্ট টেবিলে ৯ নম্বরে নেমে যেতে হয় ইউনাইটেডকে৷

১৯ মিনিটের মাথায় লান্ডস্ট্রামের শট ডি গেয়া প্রহত করার পর ফিরতি বলে ম্যাঞ্চেস্টারের জালে ঠেলে জেন জন ফ্লেক৷ ৫২ মিনিটে ফ্লেকের পাস থেকে গোল করে ব্যবধান ২-০ করেন লিস মউসেট৷ ৭২ মিনিটে টিন-এজার ব্র্যান্ডন উইলিয়ামস ইউনাইটেডের হয়ে ব্যবধান কমিয়ে ২-১ করেন৷ ৭৭ মিনিটে রাশফোর্ডের পাস থেকে গোল করে ম্যাচে ২-২ সমতা ফেরান আর এক টিন-এজার ম্যাসন গ্রিনউড৷

আরও পড়ুন: অপ্রতিরোধ্য লিভারপুলের শিকার এবার ক্রিস্টাল প্যালেস

৭৯ মিনিটে জেমসের ক্রস থেকে গোল করে ম্যাঞ্চেস্টারকে ২-৩ গোলে এগিয়ে দেন রাশফোর্ড৷ ৯০ মিনিটে রবিনসনের পাস থেকে গোল করে ম্যাকবার্নি শেফিল্ডের পরাজয়ের শঙ্কা দূর করেন এবং স্কোর-লাইন ৩-৩ করেন৷ এই ড্র’য়ের পর ১৩ ম্যাচে ম্যাঞ্চেস্টারের পয়েন্ট দাঁড়ায় ১৭৷ শেফিল্ডের পয়েন্ট দাঁড়ায় ১৮৷ তারাও পঞ্চম স্থান থেকে ছ’নম্বরে নেমে যায়৷ লিভারপুল যথারীতি ১৩ ম্যাচে ৩৭ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে রয়েছে৷