ম্যাঞ্চেস্টার: ৭৭ বছর বয়সে ডাগ-আউটে ফিরলেন স্যার অ্যালেক্স ফার্গুসন। কোচের হট-সিট ছেড়ে মাঠে নেমে গোল করলেন ওলে গানার সোল্কজায়ের। ডানদিক থেকে একের পর এক ক্রস ভেসে এল ডেভিড বেকহ্যামের বিষাক্ত ডান পা থেকে। স্কেমিচেল, স্কোলস, নেভিলরা তো ছিলেনই। সবমিলিয়ে রবিবাসরীয় ওল্ড ট্যাফোর্ডে নস্টালজিয়া।

অবাক হচ্ছেন? হ্যাঁ, অবাক করার মতই বিষয়। কিন্তু সত্যিই রবিবাসরীয় ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে ঘটল ঠিক এমনটাই। উপরের ছবিগুলো ফুটবল অনুরাগীদের দৃশ্যপটে ভেসে উঠলে তারা মিল পাবেন বিশ বছর আগে ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেডের সেই ঐতিহাসিক দলের সঙ্গে। ঐতিহাসিক কারণ, একমাত্র ইংলিশ ফুটবল ক্লাব হিসেবে সেবার ফার্গুসনের দল ছিনিয়ে নিয়েছিল ত্রিমুকুট। প্রিমিয়র লিগ, এফএ কাপের পাশাপাশি ইউরোপ সেরার মুকুট উঠেছিল গ্যারি নেভিল, ডেভিড বেকহ্যামদের মাথায়।

আরও পড়ুন: ভ্যালেন্সিয়ার কাছে মুখ থুবড়ে পড়ল বার্সার ডাবল জয়ের স্বপ্ন

ফাইনালে জার্মান জায়ান্ট বায়ার্ন মিউনিখকে হারিয়ে দ্বিতীয়বার ইউরোপ সেরা হয়েছিল রেড ডেভিলসরা। বছর ২০ বাদে ‘৯৯-র ত্রিমুকুট জয়ী সেই দলের সঙ্গে একটি প্রীতি ম্যাচে রবিবার অংশ নিয়েছিলেন বায়ার্নের সর্বকালের কিংবদন্তীরা। কিন্তু ঘরের মাঠে ‘৯৯ ট্রেবল রিইউনিয়ন’ ম্যাচের সেই অভিজ্ঞতা বিশেষ সুখের হল না জার্মান জায়ান্টদের জন্য। পুনর্মিলন ম্যাচে বাভারিয়ানদের ৫-০ গোলে পর্যুদস্ত করল ম্যান ইউ। আর দীর্ঘদিন পর ওল্ড-ট্র্যাফোর্ডের ডাগ-আউটে বসে যেন এক লহমায় বিশ বছর আগের স্মৃতিতে ডুব দিলেন স্যার ফার্গুসন। পাশাপাশি মরশুমের হতাশাজনক পারফরম্যান্সের পর ম্যান-ইউ অনুরাগীরা ঘরে ফিরলেন এক বুক টাটকা বাতাস নিয়ে।

আরও পড়ুন: ‘পাকিস্তানের বিরাট কোহলি’ বেছে দিলেন মাইকেল ক্লার্ক

রেড ডেভিলসদের হয়ে প্রীতি ম্যাচে এদিন গোলের খাতা খুললেন পরিবর্ত সোল্কজায়ের। ৩০ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন ত্রিনিদাদ-টোবাগো কিংবদন্তি ডুইট ইয়র্ক। ৪৬ বছর বয়সেও পরিচিত জোড়া পায়ের ট্যাকেলে প্রাক্তন ডাচ তারকা জানান দিলেন জ্যাপ স্ট্যাম আছেন জ্যাপ স্ট্যামেই। একইসঙ্গে ডান-দিক থেকে সারা ম্যাচে সতীর্থদের জন্য বিষাক্ত সব ক্রস ভেসে এল ইংরেজ কিংবদন্তি ডেভিড বেকহ্যামের পা থেকে।

আরও পড়ুন: ৮৩’র বিশ্বজয়ের জন্য কপিলকে কৃতিত্ব শ্রীকান্তের

তবে তৃতীয় গোলের জন্য ফার্গুসনের দলকে অপেক্ষা করতে হল ৭৯ মিনিট পর্যন্ত। দুরন্ত ফিনিশে স্কোরলাইন ৩-০ করেন নিকি বাট। এরপর বাভারিয়ান কিংবদন্তিদের কফিনে শেষ পেরেকদুটি পুঁতে দেন ফরাসি কিংবদন্তি লুইস সাহা ও ডেভিড বেকহ্যাম।

ম্যান ইউ একাদশ: পিটার স্কেমিচেল (অধিনায়ক), গ্যারি নেভিল, জ্যাপ স্ট্যাম, রনি জনসেন, ডেনিস ইরউইন, ডেভিড বেকহ্যাম, নিকি বাট, পল স্কোলস, জেসপার ব্লমভিস্ত, ডুইট ইয়র্ক, অ্যান্ডি কোল।