বার্নলি: লিভারপুল আপাতত ধরাছোঁয়ার বাইরে৷ স্বাভাবিকভাবেইলিগ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার দৌড়ে বাকিদের থেকে এগিয়ে রয়েছে ক্লপরা৷ তবে মরশুমের শুরু থেকেই লিভারপুলের পিছনে দ্বিতীয় স্থান বজায় রেখে চলছিল ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন ম্যাঞ্চেস্টার সিটি৷ নিউক্যাসল ইউনাইটেডের বিরুদ্ধে ড্র করে একসময় লিগ টেবিলের দ্বিতীয় স্থানও খোয়াতে হয়েছিল সিটিকে৷ বার্নলিকে বিধ্বস্ত করে দ্বিতীয় স্থান ফিরে পেল গুয়ার্দিওলার দল৷

বার্নলি তাদের ঘরের মাঠে ৪-১ গোলে পরাজিত করল ম্যাঞ্চেস্টার সিটি৷ ম্যাচের দুই অর্ধে দু’টি গোল করেন সিটির ব্রাজিলিয়ান তারকা গ্যাব্রিয়েল জেসুস৷ বাকি দু’টি গোল হার্নান্ডেজ ও মাহরেজের৷ বার্নলির হয়ে শেষ মুহূর্তে ব্যবধান কমান বার্ডি৷

আরও পড়ুন: ২০২০ আইপিএল নিলামে ৯৭১ জন ক্রিকেটার

নিউক্যাসলের বিরুদ্ধে ড্র ম্যাচের প্রথম একাদশে চারটি রদবদল করে গুয়ার্দিওলা বার্নলি’র বিরুদ্ধে দল নামান৷ কার্ড সংস্যায় গুন্দোয়ান মাঠে নামতে পারেননি৷ স্টোনস, মেন্দি, মাহরেজকে বেঞ্চে রেখে পেপ প্রথম দলে সুযোগ করে দেন ওতামেন্দি, অ্যাঞ্জেলিনো, রড্রি ও বার্নার্দো সিলভাকে৷

ম্যাচের ২৪ মিনিটে ডেভিড সিলভার পাস থেকে সিটির হয়ে প্রথম গোল করেন জেসুস৷ প্রথমার্ধে আর কোনও গোল হয়নি৷ বিরতিতে ম্যাচের ফল ছিল সিটির অনুকূলে ১-০৷ দ্বিতীয়ার্ধের খেলা শুরু হওয়ার মিনিট পাঁচেকের মধ্যেই জেসুস ম্যাচে নিজের এবং দলের হয়ে দ্বিতীয় গোল করেন৷ ৫০ মিনিটে বার্নার্দো সিলভার পাস থেকে গোল করেন জেসুস৷

আরও পড়ুন: মেসির দখলে হাফ-ডজন ব্যালন ডি’অর

৬৮ মিনিটে রড্রি হার্নান্ডেজের গোলে ৩-০ এগিয়ে যায় ম্যান সিটি৷ ৮৭ মিনিটে বার্নার্দো সিলভার পাস থেকে গোল করে স্কোর-লাইন ৪-০ করেন মাহরেজ৷ ৮৯ মিনিটে হেন্ড্রিকের পাস থেকে বার্নলির হয়ে একমাত্র গোলটি করেন বার্ডি৷

এই জয়ের সুবাদে ১৫ ম্যাচে সিটির পয়েন্ট দাঁড়ায় ৩২৷  লেস্টার ১৪ ম্যাচে ৩২ পয়েন্ট সংগ্রহ করলেও গোল পার্থক্যে পিছিয়ে রয়েছে সিটির থেকে৷ ১৪ ম্যাচে ৪০ পয়েন্ট নিয়ে লিগ টেবিলের শীর্ষে রয়েছে লিভারপুল৷