বার্সেলোনা: ঠিক ২০ বছর আগে বায়ার্ন মিউনিখকে হারিয়ে ইউরোপ সেরা হওয়ার পথে ম্যান ইউয়ের হয়ে জয়সূচক গোলটি এসেছিল ওলে গানার সোল্কজায়েরের পা থেকে। চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জয়ের সঙ্গে সঙ্গে ওই মরশুমে ত্রিমুকুট জিতেছিল রেড ডেভিলসরা। বিশ বছর বাদে ক্লাবের কোচ হয়ে এসে যদিও চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জয়ের বেশ কিছুটা দূরেই থমকে যেতে হল সোল্কজায়েরকে। সৌজন্যে ফিলিপ কুটিনহোর একমাত্র ও লিও মেসির জোড়া গোল।

ঘরের মাঠে প্রথম লেগে এক গোলে পিছিয়ে থেকে এদিন নু-ক্যাম্পে ০-৩ গোলে বিধ্বস্ত হল ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেড। এগ্রিগেটে ০-৪ ব্যবধানে হেরে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে বিদায় নিশ্চিত হল তিনবারের ইউরোপ সেরাদের। প্রথমার্ধে মধ্যমনি লিও মেসির জোড়া গোলেই ২০১৪-১৫ পর কোয়ার্টারের বৈতরণী পেরনো কার্যত নিশ্চিত হয়ে যায় কাতালান ক্লাবের। দ্বিতীয়ার্ধে গোল করে বার্সার সেমিতে যোগ্যতা অর্জনে শিলমোহর দেন কুটিনহো।

আরও পড়ুন: বিশ্বকাপ দেখার জন্য 3D গ্লাস কিনছেন, বাদ পড়ে জানালেন রায়ডু

যদিও এদিন ম্যাচের প্রথম মিনিটে ম্যান ইউ স্ট্রাইকার মার্কাস র‍্যাশফোর্ডের শট বার কাঁপিয়ে চলে যায়। এরপর বার্সার বিরুদ্ধে একটি পেনাল্টির নির্দেশ দিয়েও ভিএআরের সাহায্য নিয়ে তা বাতিল করেন রেফারি। ১৬ মিনিটে একক দক্ষতায় গোল করে বার্সাকে ম্যাচে প্রথমবারের জন্য এগিয়ে দেন এলএমটেন। ২৪ মিনিটে দি গিয়াকে পরাস্ত করে ইংলিশ ক্লাবটির বিরুদ্ধে নিজের ২৪ তম গোলটি তুলে নেনে আর্জেন্তাইন সুপারস্টার। ওখানেই কার্যত নিশ্চিত হয়ে যায় বার্সার শেষ চার।

আরও পড়ুন: স্বপ্ন সত্যি হল নাইট অধিনায়কের

দ্বিতীয়ার্ধে ম্যাচ আরও দখলে নিয়ে নেয় পাঁচবারের ইউরোপ সেরা বার্সেলোনা। ৬৪ মিনিটে বক্সের টপ কর্ণার থেকে দুরন্ত গোলে ম্যাচে প্রতিপক্ষের ফিরে আসার সমস্ত পথ বন্ধ করে দেন ব্রাজিল তারকা কুটিনহো। এরপর ম্যাচের বাকি সময়টা আর কোনও পক্ষ গোল করতে না পারায় ৩-০ গোলে জয় নিশ্চিত হয় বার্সার। একইসঙ্গে দুই লেগ মিলিয়ে ৪-০ ব্যবধানে জিতে ২০১৪-১৫ মরশুমর পর ফের ইউরোপ সেরার টুর্নামেন্টে শেষ চার নিশ্চিত করল কাতালান ক্লাব।