ভোপাল: বাঘ মামার পেটে লাথি মেরে যমের দুয়ার থেকে মালিককে ফিরিয়ে আনল সারমেয়৷

মজার বিষয় নয় ঠিকই৷ তবে কুকুরটি সঙ্গে না থাকলে মালিকের হলুদ ডোরাকাটার ব্রেকফাস্টের মেনু হওয়া থেকে কেউ আটকাতে পারত না৷ অবাক করার মতো ঘটনাটি মধ্যপ্রদেশের সিওনি জেলার৷

২২ বছরের পঞ্চম গাজবা তাঁর ভাইয়ের সঙ্গে পরশমণি গ্রাম লাগোয়া ঘন জঙ্গলের মধ্যে দিয়ে বাড়ি ফিরছিল৷ খাবারের গন্ধ পেয়ে গুটি গুটি পায়ে সেখানে হাজির বাঘ মামা৷ সামনে মাংসাশী দুটি প্রাণী দেখতে পেয়ে বাঘটি পিছন থেকে বিরাট লম্ফ মেরে ঝোপের মধ্যে লুকিয়ে পড়ে৷ তারপর সুযোগ বুঝে ঝোপ থেকে বেরিয়ে হালুম বলে ডাক হাঁকে৷ ভয় তখন দু’জনে থরহরিকম্প৷

প্রাণের মায়া তখন ত্যাগই করে ফেরেছিলেন পঞ্চম৷ সেই সময় ত্রাতার ভূমিকায় এসে হাজির সারমেয়৷ ঘেউ ঘেউ করে চিৎকার জুড়ে দেয়৷ জঙ্গলে এমন ডাক শুনে সম্ভবত হতবাক হয়ে যায় বাঘও৷ আসতে আসতে পিছু হটতে শুরু করে৷ তারপর বিপদ বুঝে সে দেয় চম্পট৷

দ্বিতীয় জীবন ফিরে পেয়ে পোষ্য সারমেয়কে ভালোবাসায় ভরিয়ে দিতে ব্যস্ত সে৷ পরে নিজেই জানাল সেই ভয়ঙ্কর অভিজ্ঞতার কথা৷ পঞ্চম জানান, মৃত্যুর মুখ থেকেই ফিরে এসেছি৷ বাঘটা আমার সামনে এসে দাঁড়িয়েছিল৷ ভয়ে শরীর ঠাণ্ডা হয়ে গিয়েছিল৷ গলাটা কামড়ে ধরবে তখনই কুকুরটা চিৎকার করে ওঠে৷ ওর চিৎকার শুনে আশেপাশের গ্রামের লোকেরা ছুটে আসে৷ সবাইকে আসতে দেখে বাঘও ভয়ে পালিয়ে যায়৷ এদিকে গ্রামের লোকেদের মুখে সব শুনে ঘটনাস্থলে যান বনদফতরের আধিকারিক ও কর্মীরা৷