কলরাডো : ফের বন্দুকবাজের হামলা মার্কিন মুলুকে(US)। জন্মদিনের পার্টি(Birthday Party) চলাকালীন বন্দুকবাজের(Gunman) হামলায় প্রাণ হারালেন(Shot Dead) অন্তত ৭ জন। ঘটনায় বন্দুকবাজ নিজেও আআত্মঘাতী হয়েছে বলে জানিয়েছেন কলরাডো পুলিশ(Colrado Police)।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, রবিবার গভীর রাতে পূর্ব কলরাডোর স্প্রিংসের পাশে একটি মোবাইল হোম পার্কে(Mobile home park) এই শুটিংয়ের ঘটনাটি ঘটেছে।

আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত রিপোর্ট থেকে জানা গিয়েছে, বন্দুকবাজের হামলার খবর পেয়ে সঙ্গে সঙ্গে ঘটনাস্থলে পৌঁছয় কলরাডো স্প্রিংসের পুলিশ(Colrado Spring police)। ঘটনাস্থল থেকে তাঁরা বন্দুকবাজ সহ মোট ছয়জনের মৃতদেহ উদ্ধার করেন এবং একজনের অবস্থা গুরতর হওয়ায় তাঁকে হাসপাতালে পাঠানো হলে পরে সেখানে তাঁর মৃত্যু হয় বলে জানা গিয়েছে। ফলে এই ঘটনায় মোট সাতজন মানুষ মারা গিয়েছেন বলে জানিয়েছেন কলরাডো পুলিশ।

ঘটনার বর্ণনা দিতে গিয়ে প্রতিবেশী ইয়েনিফার রেইস পুলিশকে জানিয়েছেন যে, বাইরে থেকে ব্যাপক গুলির আওয়াজ আসলেও বিদ্যুৎ চমকাচ্ছে ভেবে তিনি বিষয়টি গুরুত্ব দেননি। পরে পুলিশের গাড়ির আওয়াজ পেয়ে বুঝতে পারেন বাইরে বন্দুকবাজের হামলা হয়েছে।

এদিকে ঘটনার প্রাথমিক তদন্তে পুলিশের অনুমান, জন্মদিনের পার্টিতে প্রণয়ঘটিত সম্পর্কের কারণে এই হামলা হয়ে থাকতে পারে। আততায়ী নিজের প্রেমিকা মারার আগে পার্টিতে গুলি চালায় তারপরে নিজেও আত্মঘাতী হয় সে।

উল্লেখ্য, ডেনভারের(Denvar) পরে কলোরাডো আমেরিকার(America) দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর। এখানকার মোট জনসংখ্যা ৪৬৫,০০০ জন৷

গত ২০১৫ সাল থেকেই ক্রমাগত বন্দুকবাজের হামলায় প্রাণ হারিয়েছেন অসংখ্য নিরীহ মানুষ। এর আগেও হ্যালোইনের কলোরাডো স্প্রিংসে(Colorado Springs on Halloween) পুলিশের সঙ্গে শ্যুটআউটে ঘটনায় এক ব্যক্তি এলোপাথাড়ি তিনজনকে গুলি করে হত্যা করে। সেদিনের ওই ঘটনার একমাসের মধ্যেই শহরের একটি ক্লিনিকে পরিকল্পনামাফিক শুটিংয়ে একজন পুলিশ অফিসার সহ তিনজনকে হত্যা করা হয় এবং ঘটনায় সেদিন আটজন আহত হয়।

অন্যদিকে সম্প্রতি, স্কুলের মধ্যে ক্লাস চলাকালীন অতর্কিতে গুলি চালায় খোদ ষষ্ঠ শ্রেণির এক পড়ুয়া। ঘটনায় কোনও মৃত্যুর খবর না মিললেও গুরুতর জখম হয়েছেন তিন পুলিশকর্মী।

বৃহস্পতিবার ঘটনাটি ঘটেছে উত্তরপশ্চিম আমেরিকার রিগবি মিডল স্কুলে। পুলিশ জানিয়েছেন, এদিন অন্যান্য সহপাঠীদের সঙ্গে স্কুলে ক্লাস করছিল ওই ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রীও। কিন্তু ক্লাস চলাকালীন আচমকা নিজের ব্যাগ থেকে বন্দুক বের করে সহপাঠীদের উপর গুলি চালাতে শুরু করে সে। শুধু তাই নয়, স্কুলের বাইরে গিয়েও গুলি চালায় সে।

এই বিষয়ে জেফারসন কাউন্টি শেরিফ স্টিভ অ্যান্ডারসন বলেন, “ওই কিশোরীর বয়স আনুমানিক ১১-১২ বছর হবে। সে আচমকাই নিজের ব্যাগ থেকে একটি বন্দুক বের করে কয়েক রাউন্ড গুলি চালায় এবং স্কুল থেকে বেরিয়ে আসে। এক শিক্ষকই অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে তাঁর হাত থেকে বন্দুক কেড়ে নেয় এবং পুলিশ না আসা অবধি নিজের হেফাজজতে আটকে রাখে।”

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.