লখনউ: প্রলোভন দেখিয়ে দিনের পর দিন নাবালিকাদের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপনের মতো অপরাধ চলছিল৷ সেই অপরাধের ছবিই ফাঁস হল সিসিটিভি ফুটেজ সামনে উঠে আসায়৷ জানা গিয়েছে, উত্তরপ্রদেশে মেরঠে ষাটোর্দ্ধ এক বৃদ্ধি নিজের বাড়িকেই কার্যত এইসব কুকীর্তির নিরাপদ আস্তানা বানিয়ে তুলেছিল৷ সেখানেই নাবালিকাদের ভুলিয়ে নিয়ে এসে দিনের পর দিন যৌন অত্যাচার করতে সে৷ শারীরিক সম্পর্ক স্থাপনেও পিছপা হয়নি৷

জনসত্তা সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত ওই খবর থেকে আরও জানা যায়, অভিযুক্ত ওই ব্যক্তির নাম বিমল চন্দ৷ ২০১৫ সালে তার স্ত্রী গত হন৷ তখন থেকেই মেরঠে সে একাই থাকত৷ বিমল নিজের বাড়িতে সিসিটিভি ক্যামেরা লাগিয়ে রেখেছিল, যাতে কার আসছে বা যাচ্ছে তা নজরে রাখতে পারে৷ কিন্তু এই সিসিটিভিই যে একদিন তার ঘৃণ্য কাজের পর্দাফাঁস করবে তা বোধ হয় কল্পনাও করতে পারেনি সে৷

প্রতীকী ছবি

কিন্তু কীভাব প্রকাশ্যে আসে এই ঘটনা?
জানা গিয়েছে, বিহারে বক্সারের বাসিন্দা আশু নামের এক ব্যক্তি বিমলের ঘরে সিসিটিভি লাগায়৷ সে এর ক্যামেরা পাসওয়ার্ড জানত৷ একদিন নিজের মোবাইল থেকে সেই পাসওয়ার্ড দিয়েই সে নজর রাখতে শুরু করে বিমলের ঘরে৷ তারপরেই প্রকাশ্যে আসে বিমলের কীর্তি৷ কাজ করতে আসা পরিচারিকা থেকে অন্যান্য নাবালিকাদের ওপর তার নিপীড়নের ভয়াবহ ছবি ফাঁস করে দেয় এই সিসিটিভি ফুটেজ৷

এই ফুটেজ নিয়ে আশু ব্ল্যাকমেল করার পরিকল্পনা করে৷ বিমল আশুকে টাকা দিয়ে তা নিয়ে নিতে চাইলে আশু রাজিও হয়ে যায়৷ কিন্তু ভিডিও ফুটেজ নেওয়ার পর সে টাকা দিতে অস্বীকার করলে আশু তার কাছে থাকা সেই অশ্লীল ভিডিওর ক্লিপিংস ভাইরাল করে দেয়৷ সমগ্র বিষয়টি পুলিশের কাছে পৌঁছলে পুলিশ আশু এবং বিমলকে গ্রেপতার করে ঘটনার তদন্তে নামে৷