তিরুঅনন্তপুরম : দশম শ্রেনীর ফাইনাল পরীক্ষায় সমস্ত বিষয়েই ‘এ প্লাস’ গ্রেড পাক ছেলে, বাবা আশা করেছিলেন এমনটাই। কিন্তু পরীক্ষার ফল প্রকাশ হতে দেখা গেল মাত্র ছ’টি বিষয়ে ‘এ প্লাস’ গ্রেড পেয়েছে ছেলে। তাতেই রেগে আগুন বাবা। ছেলে ঘরে ফিরে রেজাল্ট দেখালে, রাগ সামলাতে না পেরে, হাতের সামনে কোদাল পেয়ে তা দিয়েই বেদম প্রহার করতে থাকেন ছেলেকে। ঘটনায় মায়ের অভিযোগের ভিত্তিতে ঘটনার দিনই অভিযুক্ত বাবাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

কেরলের মাধ্যমিক সমতুল পরীক্ষা সেকেন্ডারি স্কুল লিভিং সার্টিফিকেট (এসএসএলসি)-এর ফলাফল প্রকাশিত হয় সোমবার। পেশায় কৃষক সাবু চেয়েছিলেন এসএসএলসি-র দশটি বিষয়ের মধ্যে দশটি বিষয়েই ‘এ প্লাস’ গ্রেড নিয়ে আসুক তার ছেলে। তবে বাস্তবে তেমনটা হয়নি। দশটির বদলে মাত্র ছ’টি বিষয়ে ‘এ প্লাস’ গ্রেড নিয়ে আসে ছেলে। কাজকর্ম সেরে এদিন সন্ধ্যাবেলায় বাড়ি ফিরে আসেন ৪৬ বছরের সাবু। ছেলে পরীক্ষার রেজাল্ট দেখাতেই তেলেবেগুনে জ্বলে ওঠেন তিনি।

এরপর পড়ে থাকা কোদাল দিয়ে ছেলেকে বেধড়ক পেটাতে থাকেন। গুরুতর আহত হয়ে পড়ে ছেলে। বাবার বিরুদ্ধে ওই দিনই অভিযোগ জানাতে ছুটে যায় থানায়। সাবুর স্ত্রীও সটান থানায় চলে যান স্বামীর বিরুদ্ধে অভিযোগ জানাতে। ঘটনা সবিস্তারে জানিয়ে অভিযোগ দায়ের করেন। ওদিন রাতেই সাবুর স্ত্রীর অভিযোগের ভিত্তিতে সাবুকে গ্রেফতার করে পুলিশ। তার বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ড বিধির ৩২৩, ২২৪,৫০৬, ৭৫ ধারায় মামলা রুজু হয়েছে।

তিরুঅনন্তপুরমের কাছে কিলিমানুর শহরের বাসিন্দা সাবু। অভিযোগ, ছেলের পরীক্ষার রেজাল্টে একেবারেই সন্তুষ্ট ছিলেন না তিনি। সে কারণেই ছেলেকে বেধড়ক মারেন। সাবুকে আদালতে পেশ করেছে কিলিমানুর থানার পুলিশ। পুলিশ জানিয়েছে, ছেলেকে মারধরের অভিযোগে আদালতে তোলা হলে সাবুর ১৪ দিনের জেল হেফাজত হয়েছে।