পাটনা: কর্মরত অবস্থায় কোনও সরকারি অফিসার বা কর্মীর মৃত্যু হলে কমপেনসেশন গ্রাউন্ডে পরিবারের সদস্যকে চাকরি দেওয়া হয়৷ ‘শর্ট কাট’ পদ্ধতিতে বিনা পরিশ্রমে সরকারি চাকরি পেতে তাই বাবাকেই খুনের সুপারি দিল বেকার ছেলে৷ ঘটনাটি বিহারের ইষ্ট কলোনি থানা এলাকার৷ গুণধর ছেলেকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ৷ সেই সঙ্গে দুই কন্ট্রাক্ট কিলারকে হাজতে পুরেছে বিহার পুলিশ৷

আরও পড়ুন: আপনার মোবাইলে কি এখনও আসছে আধার লিংকের নোটিফিকেশন

পুলিশ জানিয়েছে, ধৃত ছেলের নাম পবন মণ্ডল৷ ২৮ বছরের পবন তার বাবা ওম প্রকাশ মণ্ডলকে খুনের পরিকল্পনা করে৷ ওম প্রকাশ রেল কর্মী৷ ৩০ এপ্রিল তাঁর চাকরি থেকে অবসর নেওয়ার দিন ছিল৷ অবসরের আগেই বাবাকে খুন করতে দুই কন্ট্রাক্ট কিলারকে সুপারি দেয় পবন৷ মঙ্গলবার অফিসে থাকার সময় গুলিবিদ্ধ হন ওম প্রকাশ৷ তাঁর কাধে গুলি লাগে৷ সঙ্গে সঙ্গে ওম প্রকাশকে রেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়৷

তদন্তে নেমে ইষ্ট কলোনি থানার পুলিশ ঘটনাস্থলের সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখে৷ সেই সূত্র ধরে প্রথমে রবি রঞ্জন (৩১) নামে এক সুপারি কিলারকে গ্রেফতার করে পুলিশ৷ তাকে জেরা করতেই নিজের অপরাধ স্বীকার করে৷ সেই সঙ্গে সামনে আসে খুনের মোটিভ৷ এরপর তার আরেক সঙ্গী সুনীল ও ওম প্রকাশের ছেলে পবন মণ্ডলকে গ্রেফতার করে পুলিশ৷

আরও পড়ুন: “শুধুমাত্র ধর্মগুরুরা ভণ্ড নয়, দেবতারাও ভণ্ড”

পুলিশের জেরায় পবন জানায় সেই বাবাকে খুন করার সুপারি দেয়৷ এর জন্য ওই দুই সুপারি কিলারকে দু’লক্ষ টাকা দেয়৷ কাজের আগে এক লক্ষ টাকা দেয়৷ কাজ শেষ হয়ে যাওয়ার পর বাকি টাকা দেওয়ার কথা ছিল৷ পুলিশকে সে জানিয়েছে, অনেকদিন ধরে সরকারি চাকরির পরীক্ষা দিচ্ছিল সে৷ কিন্তু এখনও অবধি একটি চাকরির পরীক্ষাতেও সাফল্য পায়নি৷ তাই বাবাকে খুন করার পরিকল্পনা করে৷ সে খুব ভালো মতো জানত তার বাবা ৩০ এপ্রিল চাকরি থেকে অবসর নেবে৷ তার আগে বাবাকে খুন করতে সুপারি দেয় সে৷ তাহলে সে বাবার চাকরিটা পেয়ে যাবে৷ বর্তমানে ধৃতরা জেল হেফাজতে আছে৷