ফাইল ছবি

স্টাফ রিপোর্টার, জলপাইগুড়ি: হাতির হানায় মৃত্যু হল এক দিনমজুরের৷ ঘটনাটি ঘটেছে জলপাইগুড়ির রাজগঞ্জে৷ মৃতের নাম প্রেমানন্দ রায়৷ এই ঘটনার পরই উত্তেজিত জনতা বনদফতেরর গাড়ি আটকে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন৷

হাতির হানা লেগেই থাকে জলপাইগুড়ির রায়গঞ্জে। ললিতা বাড়ির পর বৈকুন্ঠপুরের জঙ্গল থেকে মালিভিটা গ্রামে ঢুকে যায় একটি বুনো হাতি। সেই সময় বাড়ি ফিরছিলেন পেশায় দিনমজুর প্রেমানন্দ রায়৷ আচমকাই হাতির সামনে পড়ে যায় তিনি। পালাতে গেলে বুনো দাঁতাল তাকে শুঁড় দিয়ে পেঁচিয়ে ধরে মাটিতে আছাড় মারে। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় তার। খবর যায় বনদফতরে।

বনকর্মীরা আসতেই তাদের গাড়িকে ঘিরে ধরে এলাকাবাসীরা। ক্ষোভের সঙ্গে জানাতে থাকে হাতির হানায়  তাদের দিশেহারা অবস্থার কথা। ওসি রাজগঞ্জ সুজন কুণ্ডু জানান, বিক্ষোভের খবর পেয়ে আমি পুলিশ পাঠাই। আসেন রাজগঞ্জ পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি পূর্ণিমা রায় ও রেঞ্জ অফিসার সঞ্জয় দত্ত। এরপর তাঁরা এলাকাবাসীদের সঙ্গে কথা বলে তাদের শান্ত করে। পরে দেহ উদ্ধার করে বেলাকোবা হাসপাতালে পাঠানো হয়। জলপাইগুড়ি সদর হাসপাতালে ময়নাতদন্ত করে মৃতদেহ পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হয়।

বৃহস্পতিবারই জলপাইগুড়ি গরুমারা জঙ্গল সংলগ্ন ময়নাগুড়ি-মালবাজারের রাস্তায় হাতির আক্রমণ থেকে অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে গিয়েছিল তিন বছরের এক শিশু ও তাঁর বাবা মা৷ স্কুটির সামনে হঠাৎ হাতি চলে আসায় গাড়ি ফেলে নিজেরা নিতু ঘোষ ও তাঁর স্ত্রী পালিয়ে যায়৷ কিন্তু নিতু বাবুর তিন বছরের কন্যা সন্তান হাতির সামনে পড়ে গিয়েছিল৷ যদিও হাতিটি শিশুটিকে কিছুই করেনি। পথচলতি সাধারণ কিছু মানুষ ও গাড়ির চালকেরা শিশুটিকে হাতির সামনে থেকে উদ্ধার করেছিল।