স্টাফ রিপোর্টার, বাঁকুড়া: মহকুমা শাসকের হস্তক্ষেপে এক নাবালিকা ছাত্রীকে শ্লীলতাহানির অভিযোগে গ্রেফতার করতে বাধ্য হল পুলিশ। ঘটনাটি বাঁকুড়ার বিষ্ণুপুর শহরের ভাটপুকুর এলাকার।

জানা গিয়েছে, গত সোমবার সকাল দশটা নাগাদ বিষ্ণুপুরের ভাটপুকুর রাস্তায় স্থানীয় একটি উচ্চ বিদ্যালয়ের একাদশ শ্রেণির এক ছাত্রীকে টিউশন যাওয়ার পথে এক ব্যক্তি শ্লীলতাহানি করে বলে অভিযোগ। এই ঘটনার পর এলাকায় দুষ্কৃতী হিসেবে পরিচিত সেখ লালু নামে ওই ব্যক্তি বিষয়টি পুলিশে জানালে ফল ভালো হবে না বলেও হুমকি দেয়৷ কিন্তু ওই নিগৃহীতা ছাত্রীর পরিবার হুমকির কাছে নতস্বীকার না করে বিষ্ণুপুর থানায় লিখিত অভিযোগ জানায়৷ কিন্তু তাও অভিযুক্ত গ্রেফতার হয়নি।

বিষয়টি ওই নাবালিকা ছাত্রীর পরিবারের তরফে মহকুমাশাসক মানস মণ্ডলকে জানানো হয়। তিনি দ্রুততার সঙ্গে পুলিশকে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলেন। বুধবার রাত পর্যন্ত অভিযুক্ত গ্রেফতার না হওয়ায় এলাকায় তীব্র চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। বৃহস্পতিবার নিগৃহীতা ছাত্রীর সহপাঠী, শিক্ষক, শিক্ষিকারা অভিযুক্তকে গ্রেফতারের দাবিতে মিছিল করে মহকুমা শাসকের কার্যালয়ে ডেপুটেশন দেন। পরে এদিন মহকুমাশাসকের হস্তক্ষেপে পুলিশ ওই অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে বিষ্ণুপুর মহকুমা আদালতে তোলে।

নিগৃহীতা ছাত্রীর মা বলেন, আমরা এই মুহূর্তে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। সকাল দশটায় এতোবড় একটা ঘটনা যদি ঘটতে পারে৷ রাত দশটায় যখন সে টিউশন থেকে বাড়ি থেকে ফেরে সেই সময় এই ঘটনা ঘটলে হয়তো মেয়েকে ফেরতই পেতাম না। এই ভেবে যথেষ্ট আতঙ্কের মধ্যে তিনি আছেন বলে জানান। মহকুমাশাসকের সঙ্গে কথা বলে বেরিয়ে যাওয়ার পথে ওই ছাত্রীর শিক্ষিকা সাধনা ভুঁইয়া বলেন, রাতে হোক দিনে বিষ্ণুপুর শহরে আগে এই ধরণের কোন ঘটনা ঘটেনি। এই ঘটনায় তারা যথেষ্ট আতঙ্কিত। অভিযুক্ত গ্রেফতার হওয়ার খবরে তারা খুশি।

নিরাপত্তার বিষয়টি মহকুমাশাসক দেখবেন বলে তাদের জানিয়েছেন বলে শিক্ষিকা সাধনা ভুঁইয়া জানান। ছাত্র, ছাত্রী, শিক্ষক-শিক্ষিকাদের সঙ্গে মহকুমাশাসকের দফতরে আসা বিদ্যালয় পরিচালন সমিতির সভাপতি অভিজিৎ সিংহ বলেন, বিষ্ণুপুর শহরে এর আগে এই ধরণের ঘটনা ঘটেনি। নিগৃহীতা ছাত্রীর মা স্কুল কর্তৃপক্ষকে লিখিতভাবে এই বিষয়ে জানান। স্কুল কর্তৃপক্ষের তরফে অভিযুক্তের শাস্তির দাবি করে এই ধরণের ঘটনা ভবিষ্যতে যাতে না ঘটে তা দেখার জন্য প্রশাসনকে তিনি অনুরোধ করেন।