ফাইল ছবি

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: বিধানসভা নির্বাচনে বাংলা জয় করতে বিজেপি যখন হিন্দুত্বের তাস সাজাচ্ছে তখন বাঙালির আবেগকে উস্কে দেওয়ার তোড়জোড় শুরু করল রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেস। সোশ্যাল মিডিয়ায় তাদের নতুন কর্মসূচি ‘সোজা বাংলায় বলছি’।

রবিবার এর প্রথম পর্বে অন্যান্য রাজ্যের তুলনায় বাংলার কর্মসংস্থানের তুলনামূলক চিত্রটি তুলে ধরলেন ডেরেক। ‘সোজা বাংলায় বলছি’ ভিডিও সিরিজের প্রথম পর্বে তৃণমূলের রাজ্যসভার দলনেতা দাবি করলেন, বললেন, “অন্যান্য রাজ্যের তুলনায় বাংলার বেকারত্বের হার কম। আমি বলছি না, CMIE’র তথ্য বলছে।

জুন মাসে ভারতে বেকারত্বের হার ছিল ১১ শতাংশ। যেখানে হরিয়ানায় বেকারত্বের হার ছিল ৩৩ শতাংশ। উত্তরপ্রদেশে ৯.৬ শতাংশ, কর্ণাটক ৯.২ শতাংশ, মধ্যপ্রদেশ ৮.২ শতাংশ, সেখানে বাংলায় বেকারত্বের হার ছিল ৬.৫ শতাংশ।” বঙ্গবাসীর উদ্দেশে ডেরেকের অনুরোধ ভোট দেওয়ার আগে ‘একটু ভেবে দেখুন’। ‘বাংলা চালাবে বাঙালিরাই’ একুশের মঞ্চ থেকেই পরবর্তী কর্মসূচির একটা ইঙ্গিত দিয়ে রেখেছিলেন নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এবারের শহিদ সমাবেশে মমতাকে বলতে শোনা গিয়েছে, ‘বহিরাগতরা বাংলা শাসন করবে না।’ অর্থাৎ পুরদস্তুর বাঙালি আবেগ উসকে দিতে চেয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।

তারই পরবর্তী পদক্ষেপ হিসাবে এবার ‘সোজা বাংলায় বলছি’ নামের এই ভিডিও সিরিজটি চালু করল শাসকদল। যার নামেই রয়েছে বাঙালিয়ানার ছোঁয়া।

‘সোজা বাংলায় বলছি’ কর্মসূচিটি কি? সপ্তাহে তিন দিন প্রতি বুধ, শুক্র ও রবিবার সকাল ১১টায় একটি এক মিনিটের ভিডিয়ো সোশ্যাল মিডিয়ায় থাকবে। আগামী কয়েক মাস চলবে এই সিরিজ। সোজা বাংলায় বলছি’ ভিডিয়ো সিরিজের উপস্থাপনায় থাকবেন রাজ্যসভায় সর্বভারতীয় তৃণমূল কংগ্রেসের সংসদীয় দলনেতা ডেরেক ও’ব্রায়েন।

এছাড়া, সামাজিক, রাজনৈতিক এবং অর্থনৈতিক বিষয়ের প্রাসঙ্গিক ক্ষেত্রগুলির ওপর তৈরি করা হবে। কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে একাধিক অভাব-অভিযোগ নিয়েও সরব হবে তৃণমূল কংগ্রেস।

তৃণমূলের দাবি, তাঁদের এই প্রচারপর্বে যে ভিডিওগুলি প্রকাশ করা হবে, তাতে সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে গত ন’বছরে বাংলার কতটা অগ্রগতি হয়েছে। এছাড়াও বিজেপির শাসনে দেশের যুক্তরাষ্ট্রীয় পরিকাঠামো কীভাবে ‘আক্রান্ত’ হচ্ছে এবং রাজ্যগুলিকে কীভাবে ‘বঞ্চনার শিকার’ হতে হচ্ছে সেটাও তুলে ধরা হবে।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ