স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: নিরাপত্তারক্ষী থেকে শুরু করে আমলা, সকলেই ক্লান্ত। হাঁপাচ্ছেন। একজনের কোনও ক্লান্তি নেই। মাইলের পর মাইল হেঁটে চলেছেন। হাসি মুখে। রাস্তার দু’পাশে বিপুল সমর্থকদের সঙ্গে হাত মেলাচ্ছেন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এহেন দৃশ্যের সঙ্গে পরিচিত রাজ্য-সহ জাতকীয় রাজনীতি। করোনা পরিস্থিতির মোকাবিলা করতে গিয়ে তাঁর এই অফুরন্ত জীবনীশক্তিতেও খানিকটা ধাক্কা লেগেছে।

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নিজেই জানিয়েছেন, কায়িক পরিশ্রমের ফলে তাঁর শরীর আর দিচ্ছে না। বুধবার নবান্ন সভাঘরে রাজ্যের মন্ত্রিসভার বৈঠকের পর সাংবাদিক সম্মেলন করেন মুখ্যমন্ত্রী।

সেখানে তিনি বলেন, বিজেপির বিরুদ্ধে সুর চড়িয়ে মমতা বলেন, ‘আমাদের রাজ্য অর্থনৈতিক টাস্ক ফোর্স ১ কোটি ৫২ লক্ষ টাকার প্যাকেজ দিচ্ছে। কোন রাজ্য দিচ্ছে? সবাই কাজ করছে। নিচুতলার মানুষের কিছু ভুল হতে পারে। কাজ করলে ভুল হবেই। ওদের ক্ষমা করে দিন।লেবু কচলাতে কচলাতে তেতো হয়ে যায় শুনেছি। বেশি কচলাবেন না।’

এরপরই নিজের শারীরিক অবস্থা নিয়ে আক্ষেপ করে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘ সারাদিন বিপদে পড়া মানুষের পাশে থাকতে থাকতেই কেটে যায়। সকাল থেকে রাত পর্যন্ত আমার এই চলে। ঘুমাতে কোথায় পারি? গত কাল রাতে আমার মাথার পেইন হচ্ছিল। আমি রাজীবকে(রাজীব সিনহা) বলছিলাম।

আপনারা জানেন, গত সানডে, এই লোকটা কাজ করতে করতে বলছে, ম্যাডাম আমার ভীষণ পেটে যন্ত্রণা করছে। আমি বললাম, গো ইওর হাউজ। সবাই তো ওয়ার্ক অ্যাট হোম করছেন বাবা। আমাদের তো ফিল্ডে কাজ করতে হচ্ছে। আমাদের ওভারটাইম করতে হচ্ছে। ডবল ডিউটি করতে হচ্ছে। তা আমরা বুঝি মানুষ নই?’

এরপরই তিনি বিজেপি নেতাদের উদ্দেশে বলেন, ‘আমার মাথায় রোজ গোঁতাবেন, আমি কি মাথা এগিয়ে দেব। এটা ভাবলে ভুল করবেন। যাঁরা ভাল কাজ করছেন তাঁদের প্রশংসা করুন। সোশ্যাল হোন, আনসোশ্যাল হবেন না। সমস্যায় পড়লে এসএমএস করে জানান। রাজনীতির বাইরে গিয়ে সাহায্য করব। অনেক রাজ্যই বেতন কেটে নিচ্ছে। রাজ্য সরকার কিন্তু তা করেনি। সবাইকে মাসের প্রথমে টাকা দিচ্ছে। বাংলাকে ধ্বংস করবেন না।’

কলকাতার 'গলি বয়'-এর বিশ্ব জয়ের গল্প