কলকাতা:  জট কাটাতে অবশেষে উদ্যোগী হলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ৫ সিনিয়র ডাক্তারকে জরুরি তলব করলেন মুখ্যমন্ত্রী। আন্দোলনকারী জুনিয়র ডাক্তারদের ছাড়াই এই বৈঠক করার কথা রয়েছে। ডক্টর সুকুমার মিত্রের নেতৃত্বে এই বৈঠকে যোগ দিয়েছেন আরও চার সিনিয়র ডাক্তার। নবান্নে ইতিমধ্যে শুরু হয়েছে এই বৈঠক। মুলত সমাধান সূত্র খুঁজতেই এই বৈঠক। ফলে এই বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী কি সিদ্ধান্ত নেয় সেদিকেই তাকিয়ে আন্দোলনকারী ডাক্তার সহ গোটা রাজ্যের মানুষ।

জানা যাচ্ছে, এই বৈঠক শেষে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হবেন। ঠিক সন্ধ্যা ৬টায় এই সাংবাদিক বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে। অন্যদিকে, ফের এনআরএসে স্বাস্থ্য-শিক্ষা অধিকর্তা প্রদীপ মিত্রকে পাঠিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মূলত আন্দোলনকারীদের সঙ্গে ফের একবার বৈঠকের বার্তা নিয়েই এনআরএসে গিয়েছেন প্রদীপবাবু। কিন্তু শেষমেশ আন্দোলনকারীরা মুখ্যমন্ত্রীর ডাকা এই বৈঠকে সাড়া দেবেন কিনা তা নিয়ে ধোঁয়াশা রয়েছেই।

প্রসঙ্গত, মুখ্যমন্ত্রীর প্রস্তাব ফেরায় জুনিয়র চিকিৎসকরা৷ নবান্নে গিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক নয়৷ বদলে মুখ্যমন্ত্রীকেই আসতে হবে নবান্নে৷ সেখানেই হবে আলোচনা৷ সকালে এমনটাই জানায় আন্দোলনকারী জুনিয়র চিকিৎসকরা৷

নিরাপত্তার আভাব ভোধ করছেন চিকিৎসকরা৷ কর্মবিরতিতে রাজ্যের সরকারি হাসপাতালের জুনিয়র চিকিৎসকরা৷ বেহাল রাজ্যের স্বাস্থ্য পরিষেবা৷ গত পাঁচ দিন ধরে চরম হয়রানির স্বীকার সাধারণ মানুষ৷

বৃহস্পতিবার এসএসকেএম-এ গিয়ে আন্দোলনকারী চিকিৎসকদের কর্মবিরতি উঠিয়ে নেওয়ার নির্দেশ দেন মুখ্যমন্ত্রী৷ বেলা দু’টোর মধ্যে পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হলে ‘এসমা’ জারিরও হুমকি দেন তিনি৷ কিন্তু, তাতেও চিঁড়ে ভেজেনি৷ আন্দোলনে অনড় থাকেন জুনিয়র চিকিৎসকরা৷ মুখ্যমন্ত্রীর কথার বিরোধীতা করে সোচ্চার হয় চিকিৎসক মহল৷ রাজ্যের সরকারি হাসপাতালে কর্মরত সিনিয়র চিকিৎসকরাও গণ ইস্তফা দেন৷

সমস্যা আরও জটিল হয়৷ দেশজুড়ে চিকিৎসা পরিষেবায় এনআরএসের আঁচ পড়ে৷ রাজ্যের বুদ্ধিজীবীরা চিকিৎসকদের দাবিকে সমর্থন করেন৷ তবে রোগীদের কথা ভেবে কর্মবিরতি প্রত্যাহারের আবেদন জানান৷ গোটা পরিস্থিতির জন্য দায়ী করা হয় রাজ্য প্রশাসনকে৷

পরিস্থিতি ভয়াবহ৷ এই অবস্থায় সমাধানসূত্র খুঁজতে শুক্রবার সন্ধ্যায় পাঁচ সিনিয়র ডাক্তারকে নবান্নে ডেকে পাঠান মুখ্যমন্ত্রী৷ কতা বলেন তাঁদের সঙ্গে৷ রাজ্যের শিক্ষা স্বাস্থ অধিকর্তা প্রদীপ মিত্র এনআরএসে গিয়ে আন্দোলনকারী চিকিৎসকদের মুখ্যমন্ত্রীর বৈঠকের প্রস্তাব দেন৷ কিন্তু কিছুতেই কিছু হয় না। এই অবস্থায় শনিবার নবান্নে ফের শুরু হয়েছে বৈঠক। গুরুত্বপূর্ণ এই বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী শেষমেশ কি সিদ্ধান্ত নেন সেদিকেই তাকিয়ে রাজনৈতিকমহল।