কলকাতাঃ  আগেই আশঙ্কা করা হয়েছিল। সেই আশঙ্কা সত্যি করে ফের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সামনে জয় শ্রী রাম স্লোগান দিলেন বিজেপি কর্মীরা। কাঁচরাপাড়ার কর্মিসভায় যাওয়ার পথে ফের জয় শ্রী রাম স্লোগান শুনতে হল তৃণমূল নেত্রীকে। যদিও কর্তব্যরত পুলিশকর্মীদের উপস্থিতিতে কোনওভাবে এড়ানো সম্ভব হয় অপ্রীতিকর অবস্থা। এমনকি কড়া নিরাপত্তায় মুখ্যমন্ত্রীর পথ সুগম করে দেওয়া হয়। তবে ঘটনাকে কেন্দ্র কর ব্যাপক উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে এলাকায়। তবে মোতায়েন করা হয়েছে বিশাল পুলিশবাহিনী।

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে কোনপথে কাঁচরাপাড়ার কর্মীসভায় নিয়ে যাওয়া হবে তা নিয়ে আজ বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই একটা ধোঁয়াশা তৈরি হয়। কারণ পুলিশের কাছে নির্দিষ্ট তথ্য ছিল মমতার কনভয় আটকানো হবে। এবং তাঁকে লক্ষ্য করে জয় শ্রী রাম স্লোগান দেওয়া হবে। আর তা যাতে না হয় এবং সুষ্ঠভাবে যাতে মুখ্যমন্ত্রীকে কর্মীসভায় পৌঁছে দেওয়া যায় তা কার্যত চ্যালেঞ্জ ছিল পুলিশের কাছে। সেই মতো হেলিকপ্টারে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নামার পরেই সড়কপথে সভাস্থলের উদ্দেশ্যে রওনা হন। অন্যান্য দিনের তুলনায় এদিন মমতার কনভয়ে ছিল বাড়তি নিরাপত্তা। যে রাস্তা ধরে মুখ্যমন্ত্রী কনভয় যাওয়ার কথা ছিল সেখানেও বাড়তি নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়। কিন্তু মমতার যাত্রাপথ খুব একটা সুগম হল না/

রথতলা মোড়ের কাছে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কনভয় পৌঁছলেই জয় শ্রীরাম ধ্বনি দেওয়া হয়৷ কোনওক্রমে পরিস্থিতি মোকাবিলা করেন নিরাপত্তাকর্মীরা৷ অন্যদিকে, কাঁচরাপাড়ার কর্মীসভা থেকে চূড়ান্ত হুঁশিয়ারি দেন দলনেত্রী৷ বলেন, বিজেপির কর্মীরা ফেলেক্স, হোডিং কীভাবে ছিঁড়ে দিচ্ছে৷ অশান্তি করছে। সভামঞ্চ থেকেই পুলিশকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশ, যারা এই ঘটনা ঘটিয়েছে, তাঁদের তিন দিনের মধ্যে যেখান থেকে পারুন সেখান থেকে গ্রেফতার করুন৷’’

অন্যদিকে, এই সভায় যাওয়ার রাস্তাজুড়ে পোস্টার লড়াইয়ে জমজমাট ছিল মুকুল গড়। বিজপুরের সভা যাওয়ার গোটা রাস্তা জুড়ে ছিল জয় শ্রীরাম লেখা পোস্টার। সেখানে অর্জুন সিং, অমিত শাহ, মোদীর ছবি। পাশাপাশি পিছিয়ে নেই তৃণমূলও। জয় শ্রীরাম এর পাল্টা ‘জয় হিন্দ’, ‘জয় বাংলা’ পোস্টার দিয়েছিল তৃণমূল কংগ্রেস। সব মিলিয়ে মুকুল গড় বীজপুরে মমতার সভা ঘিরে ক্রমশ রাজনৈতিক উত্তেজনার পারদ চড়ছিলই। এই অবস্থায় জয় শ্রী রাম স্লোগান উত্তেজনাকে নয়া মাত্রা দেন।

প্রসংত, গত কয়েকদিন আগে ভাটপাড়ায় সভা করতে চান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেখানেও একইভাবে মমতার কনভয় দাঁড় করিয়ে জয় শ্রী রাম স্লোগান দেন বিজেপি কর্মীরা। যাতে প্রকাশ্যে মেজাজ হারান মুখ্যমন্ত্রী। যাতে এবার এহেন কোনও পরিস্থিতি তৈরি না হয় সেজন্যে পুলিশের তরফে সবরকম আঁটসাঁট ব্যবস্থা করা হয়।