কলকাতা: মোদী, অমিত শাহ তাঁর আত্মবিশ্বাসে বড়সড় ঘা দিয়েছেন। প্রকাশ্যে তেমন কিছু না বললেও বিজেপির কাছে তৃণমূলের এই শোচনীয় হাল মেনে নিতে পারছেন না তৃণমূল সুপ্রিমো তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাই ২৪ ঘণ্টা পার হয়ে গেলেও ঘরের বাইরে পা রাখলেন না দিদি। ভাইপো অভিষেক বন্দোপাধ্যায়ের বাড়ির চৌহদ্দিও দেখা গেল শুনশান। বিয়াল্লিশে বিয়াল্লিশ পাওয়ার লক্ষ্যেই লড়াইয়ে নেমেছিলেন মমতা।

কিন্তু গেরুয়া বাহিনী তাঁকে বাইশেই আটকে দিয়েছে। তাঁর শাসনে বাংলার এই হাল কিছুতেই মেনে নিতে পারছেন না মমতা, তাঁর ঘনিষ্ঠরা অন্তত এমনটাই জানাচ্ছেন। বৃহস্পতিবার কালীঘাটের বাড়ি থেকে বেরোননি দিদি। ববি হাকিম ও অভিষেক ছাড়া আর কেউই তাঁর কাছে এদিন আসেননি। শুক্রবারও নবান্নে যাননি মমতা। বাড়িতেই ছিলেন। কোনও সংবাদমাধ্যমকে তাঁর বাড়ির ত্রিসীমানায় ঘেঁষতে দেওয়া হয়নি।

তবে রোজের হাজিরা দেওয়া নির্মল মাঝি ছাড়া এখনো পর্যন্ত দিনের প্রথমার্ধে দলের কোনও নেতাকে দিদির বাড়িতে আসতে দেখা যায়নি। তবে বিকেলের দিকে মুখ্যমন্ত্রীর বাড়ি যান অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। কিছুক্ষণ পরেই সেখানে যান ইন্দ্রনীল সেনও।

শনিবার বিকেল চারটেয় রিভিউ কমিটির বৈঠক ডেকেছেন নেত্রী। ৪২ টি কেন্দ্রের জেতা-হারা সব প্রার্থীদের বৈঠকে ডেকেছেন তিনি। জেলার সভাপতিদের ডাকা হয়েছে বৈঠকে। যে সব জেলায় বিশেষ করে উত্তরবঙ্গ, জঙ্গলমহল, পাহাড় যেখানে শোচনীয় অবস্থা হয়েছে তৃণমূলের সেই সব জায়গার জেলা সভাপতিদের কাছ থেকে রিপোর্ট তলব করা হয়েছে। সোমবারের আগে মুখ্যমন্ত্রী নবান্নে ঢুকবেন না বলেই মনে করা হচ্ছে।