মধ্যমগ্রাম: নাগরিকত্ব আইন ও এনআরসি নিয়ে আবারও তৃণমূলনেত্রীর নিশানায় বিজেপি৷ বৃহস্পতিবার সিএএ ও এনআরসির প্রতিবাদে ফের পথে নামেন তৃণমূলনেত্রী৷ প্রতিবাদ মিছিল শুরুর আগে মধ্য়মগ্রামের সভা থেকে তুলোধনা করেন কেন্দ্রীয় সরকারকে৷ আবারও মোদী সরকারের বিরুদ্ধে তোলেন বিভাজনের রাজনীতির অভিযোগ৷

নাগরিকত্ব আইন ও এনআরসির প্রতিবাদে শুরু থেকেই পথে নেমে প্রতিবাদ-আন্দোলনে সামিল তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায়৷ কেন্দ্রীয় আইনের প্রতিবাদে এর আগেও কলকাতায় একাধিক সভা-মিছিল করছেন মমতা বন্দ্য়োপাধ্য়ায়৷ পুরুলিয়া, শিলিগুড়িতেও প্রতিবাদ মিছিলে সামিল হয়েছেন৷ আর এবার মধ্যমগ্রামে নাগরিকত্ব আইন ও এনআরসির প্রতিবাদে প্রতিবাদ কর্মসূচি মমতার৷ মিছিল শুরুর আগে সভায় সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখতে গিয়ে আবারও কড়া সমালোচনা করলেন কেন্দ্রীয় সরকারের৷ একইসঙ্গে বুধবারের ধর্মঘট নিয়ে নাম না করে বিঁধলেন বাম-কংগ্রেসকেও৷

কেন্দ্র বিভাজনের রাজনীতি করছে বলে অভিযোগ মমতার৷ নাগরিকত্ব আইন নিয়ে মতুয়া সমাজকে বিজেপি ভুল বোঝাচ্ছে বলেও অভিযোগ তৃণমূলনেত্রীর৷ এদিন এই প্রসঙ্গে মমতা বলেন, ‘মতুয়ারা এমনিতেই এদেশের নাগরিক৷ ওঁদের আবার নতুন করে নাগরিকত্ব দেওয়ার কথা বলা হচ্ছে৷ মতুয়াদের বিভ্রান্ত করা হচ্ছে৷ ওঁদের মিথ্যা কথা বলা হচ্ছে৷’ একইভাবে উদ্বাস্তুদেরও সিএএ নিয়ে ভুল বোঝানো হচ্ছে বলে দাবি তৃণমূলনেত্রীর৷ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘উদ্বাস্তুদের আমরা নাগরিকত্ব দিয়েছি৷ এখন ওঁদের ফের নাগরিকত্ব দেওয়ার কথা বলে বিভ্রান্ত করছে কেন্দ্রীয় সরকার৷’

এরই পাশাপাশি এদিন ফের কেন্দ্রের বিজেপি সরকারের বিরুদ্ধে ভেদাভেদের রাজনীতির অভিযোগে সরব হয়েছেন তৃণমূলনেত্রী৷ কেন্দ্রের একাধিক নিয়ম-বিধির জেরে দেশের গরিব মানুষকে ঘোর সমস্যায় পড়তে হচ্ছে বলেও অভিযোগ তৃণমূল সুপ্রিমোর৷ তৃণমূলনেত্রী বলেন, ‘গরিব মানুষকে শুধু লাইনে দাঁড় করাচ্ছে৷ কেন্দ্রের নীতির জেরে হয়রানির শিকার হচ্ছেন গরিব মানুষ৷ যাঁরা ভোট দেন প্রত্যেকেই নাগরিক৷’

নাগরিকত্ব আইন নিয়ে কেন্দ্রের সমালোচনার পাশাপাশি বুধবারের ধর্মঘট নিয়ে নাম না করে বাম-কংগ্রেসেরও তীব্র সমালোচনা করেন মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায়৷ বুধবার বাম-কংগ্রেসের ধর্মঘটে একাধিক জেলায় বিক্ষিপ্ত গন্ডগোল হয়৷ মালদহের সুজাপুরে পুলিশের গাড়িতে আগুন ধরানোর অভিযোগ ওঠে ধর্মঘটীদের বিরুদ্ধে৷ পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষেও জড়িয়ে পড়তে দেখা যায় ধর্মঘটীদের৷ এ প্রসঙ্গে তৃণমূলনেত্রী বলেন, ‘অনেকে ঘোলা জলে মাছ ধরতে নেমেছেন৷ কারও প্ররোচনায় পা দেবেন না৷ আন্দোলনের নামে গন্ডগোলে জড়িয়ে পড়বেন না৷ বাস, গাড়িতে আগুন ধরিয়ে আন্দোলন করবেন না৷ শান্তিপূর্ণ পথে কেন্দ্রীয় নীতির বিরুদ্ধে আন্দোলন করুন৷’