স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের লেখা কবিতা ‘সেফ ড্রাইভ সেভ লাইফ’ এবার থেকে স্কুলপাঠ্যে আনা হচ্ছে বলেই স্কুলশিক্ষা দফতর সূত্রে খবর৷ রাজপথে নিত্যদিনের দুর্ঘটনা রুখতে এতদিন ‘সেফ ড্রাইভ সেফ লাইফ’ এর গান শোনা যেত মহানগরের প্রত্যেকটি সিগন্যালে৷ স্কুল পড়ুয়াদের মধ্যে প্রথম থেকেই সচেতনতা তৈরির লক্ষ্যে মুখ্যমন্ত্রীর সেই গানই এখন কবিতা আকারে সিলেবাসে আনা হচ্ছে বলেই দাবি স্কুলশিক্ষা দফতরের৷

ইদানিংকালে রাজপথে দুর্ঘটনার সংখ্যা বেড়েছে৷ দুর্ঘটনার বলি হচ্ছে অনেক তরুণ প্রজন্মও৷ আর তাই প্রথম থেকেই পথনিরাপত্তা সংক্রান্ত বিষয়ের জোর দিতে চাইছে সরকার। শুধু তাই নয়, ছোট থেকেই শিশুমনে বিষয়টি গেঁথে দিতে নেওয়া হচ্ছে একাধিক ব্যবস্থা৷ ছোটদের ছবি আঁকা, নাটকে অভিনয়ের পাঠ পড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে, এবার সচেতনতার পাঠও দেওয়া হবে ছাত্রছাত্রীদের। শুধু তাই নয়, পথসচেতনতা বাড়াতে প্রয়োজনে স্থানীয় থানার পুলিশরা স্কুলে গিয়ে নিরাপত্তা সংক্রান্ত পাঠ পড়াবেন ছাত্র-ছাত্রীদের৷

স্বাস্থ্য ও শরীরশিক্ষার সিলেবাসে মুখ্যমন্ত্রীর এই কবিতা আনা হচ্ছে বলেই জানা গিয়েছে৷ তাতে ছোট থেকেই স্বাস্থ্য ও শরীর নিয়ে যাতে সচেতনতা তৈরি হয়ে যাবে শিশুমনে৷ প্রথমে মূলত এই বইটি লেখা হয়েছিল শিক্ষক-শিক্ষিকাদের জন্য৷ তখন ষষ্ঠ শ্রেণির পড়ুয়াদের সেই কবিতাটি শেখানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল৷ কিন্তু দফতরের মতে, পাঠ্যক্রমে না থাকলে কিমবা পরীক্ষায় না এলে বেশিরভাগ পড়ুয়ারাই পড়তে চায় না৷ তাই সচেতনতার লক্ষ্যেই মূলত দফতরের এই নজিরবিহীন সিদ্ধান্ত বলেই জানা যাচ্ছে৷

মুখ্যমন্ত্রীর কবিতা ‘সেফ ড্রাইভ সেভ লাইফ’
সেফ সেফ সেফ ড্রাইভ, সেভ সেভ সেভ লাইফ।
সাবধান সাবধান সাবধান।
গাড়ি-ঘোড়া সব আস্তে চালান,
মানুষের জীবন আপনি বাঁচান।
হলুদ আলোতে রেডি হয়ে যান,
সবুজ আলোতে আস্তে চালান,
আপনারই হাতে আছে মানুষের প্রাণ।
লালবাতি দেখে তাই গাড়ি থামান,
একে অন্যের প্রাণ বাঁচান।
নিজে বাঁচুন অপরকে বাঁচান।
সেফ সেফ সেফ ড্রাইভ, সেভ সেভ সেভ লাইফ।
সিগন্যাল ভেঙে গাড়ি চালাবেন না,
হেলমেট ছাড়া গাড়ি চালাবেন না,
আপনার হাতে মানুষের প্রাণ
নিয়মটা মেনে তাই গাড়ি চালান।
তাড়াহুড়ো রেষারেষি করবেন না।
একে অন্যকে মারবেন না
সেফ সেফ সেফ ড্রাইভ, সেভ সেভ সেভ লাইফ।
প্রাণ বাঁচান প্রাণ বাঁচান।
নিজে বাঁচুন, অপরকে বাঁচান।