কলকাতা: বিজেপি কিংবা কেন্দ্রীয় সরকার যেন শেষ দফা ভোটে কোনোরকম নাক না গলায়, তার জন্য মুখ্য নির্বাচনী আধিকারিক সুনীল অরোরাকে চিঠি দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

মমতার দাবি, নির্বাচন প্রক্রিয়ায় বিভিন্ন সময়ে পক্ষপাতিত্বে ভরা নানা বেআইনি ও অসাংবিধানিক সিদ্ধান্ত নিয়েছে কমিশন। তাই ভোটের ঠিক আগের দিন অর্থাৎ শনিবার সুনীল অরোরাকে কড়া ভাষায় চিঠি লিখেছেন মমতা।

বিজেপি-র নাম না করে মমতার দাবি, কেন্দ্রের শাসক দলের প্রভাব যেন না থাকে শেষ দফার ভোটে। যাতে শান্তিপূর্ণ ও নিরপেক্ষ ভোট হয়, তা নিশ্চিত করার জন্য কমিশনকে অনুরোধ জানিয়েছেন তিনি।

শেষ দফা নির্বাচনের প্রায় ১২ ঘণ্টা আগে মুখ্য নির্বাচন কমিশনার সুনীল অরোরাকে চিঠিতে তিনি লিখেছেন, ‘কেন্দ্রীয় সরকার তথা কেন্দ্রের শাসক দলের প্রভাবের জন্য নির্বাচন প্রক্রিয়ায় একাধিক বেআইনি, অসাংবিধানিক এবং পক্ষপাতিত্বে ভরা সিদ্ধান্ত নিয়েছে নির্বাচন কমিশন। এর ফলে রাজ্য সরকার এবং তার আধিকারিকদের তো বটেই, সাধারণ মানুষকেও নানা ভাবে হেনস্থা ও হামলার মুখে পড়তে হয়েছে।’

এই চিঠিতে বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙার প্রসঙ্গও টেনে এনেছেন তিনি। অমিত শাহের র‌্যালির আসল উদ্দেশ্য নিয়েও বিস্ফোরক দাবি করেছেন মমতা। ‘রাজ্যের সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যময় ভাবমূর্তি নষ্ট করতে, এই রাজ্যের মানুষ তথা সরকারেরমানহানির জন্যই সে দিন ইচ্ছাকৃত ভাবে রোড শোয়ের নামে এক অপরাধমূলক ষড়যন্ত্র করা হয়েছিল।’

বিবেক দুবে ও অজয় নায়েকের নিযুক্তি নিয়েও কমিশনের ভূমিকায় প্রশ্ন তুলেছেন মমতা। তিনি লিখেছেন, ‘নির্বাচন কমিশন দু’জন অবসরপ্রাপ্ত সরকারি আধিকারিককে বিশেষ পর্যবেক্ষক হিসাবে নিয়োগ করেছে, যা আইনানুগ নয়।’ মমতার দাবি, “এই বিশেষ পর্যবেক্ষকেরা সব সময়েই পক্ষপাতিত্বমূলক আচরণ করেছেন।’