নিবেদিতা দে, কলকাতা: আজ জগন্নাথদেবের রথযাত্রা৷ সারা রাজ্যের সঙ্গে কলকাতাতেও মহা সমারোহে পালন হয় এই বিশেষ দিন৷ প্রতিবারের ন্যায় এবছরও রথযাত্রা উপলক্ষে তাই রাজ্যবাসীকে শুভেচ্ছাবার্তা জানিয়েছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী৷ শুভেচ্ছাবার্তাতেই বিজেপির বিরুদ্ধে সুর চড়িয়েছেন মমতা৷ কটাক্ষের সুরে তাঁর দাবি, ‘‘কেউ কেউ উৎসবের মধ্যেও বিভেদ সৃষ্টি করতে চায়৷ কিন্তু তৃণমূল সরকার ধর্মের রথের আয়োজন করে, রাজনীতির নয়৷ তৃণমূলের লক্ষ, সেই বিভেদকামী শক্তিকে পরাস্ত করা, রাজ্যে সম্পূর্ণভাবে শান্তিপূর্ণ রথযাত্রার আয়োজন করা৷’’

আরও পড়ুন- ভালো দলকেই সমর্থন করবেন মমতা

এর আগে রামনবমী পালন করা নিয়ে বিজেপি-তৃণমূল তরজা চরমে ওঠে৷ অভিযোগ ওঠে হিন্দুদের এই বিশেষ উৎসবকে নিয়ে রাজনীতি করার৷ আর সেই পরিপ্রেক্ষিতেই বিজেপির বিরুদ্ধে আগেভাগে মুখ্যমন্ত্রীর এই মন্তব্য, বলেই মনে করছে রাজনৈতক মহল৷ যদিও রথযাত্রা নিয়ে বিশেষ উৎসাহ দেখায়নি রাজ্য বিজেপি৷ শনিবার রথযাত্রায় অংশগ্রহণ করেছেন তৃণমূলের মন্ত্রীরা৷ অরুপ বিশ্বাস, সুব্রত মুখোপাধ্যায়, ববি হাকিম, শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় এবং শুভেন্দু অধিকারিকে রথযাত্রার অনুষ্ঠানে দেখা দিয়েছে৷

তবে প্রতিবারের মত সেজে উঠেছে কলকাতার ইসকনের মন্দির ৷ এবারও ইসকনের রথযাত্রার সূচনা করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। উপস্থিত ছিলেন অভিনেত্রী সাংসদ মুনমুন সেন, মন্ত্রী ইন্দ্রনীল সেন৷ ছিলেন বলি নেত্রী ভাগ্যশ্রীও৷ রথের দড়িতে টান দিয়ে এদিন মুখ্যমন্ত্রী শুধু বাংলা নয়, বিশ্বের শান্তি কামনা করেন৷

আরও পড়ুন- মাদার টেরেসাকে বদনাম করতে চাইছে বিজেপি, অভিযোগ মমতার

১৯৭১ সাল থেকে ইসকনের এই রথযাত্রাটি কলকাতায় আয়োজিত হচ্ছে। ৪৭ বছরে পা দিল এই রথ৷ প্রতি বছরই মানুষ ভিড় জমান রথের রশিতে টান দিতে। অ্যালবার্ট রোডে অবস্থিত ইসকনের মন্দির থেকে রথের যাত্রা শুরু হয়ে গোটা শহরে প্রদক্ষিণ করে৷ এজেসি বোস রোড, শরৎ বোস রোড, হাজরা রোড, এসপি মুখার্জি রোড, এটিএম রোড, এক্সাইড ক্রসিং, জওহরলাল নেহরু রোড, আউট্রাম রোড-সহ শহরের একাধিক রাস্তায় প্রদক্ষিণ করে ব্রিগেড প্যারেড গ্রাউন্ডে এসে শেষ হয় যাত্রা। ২২ জুলাই পর্যন্ত সেখানেই রাখা থাকবে।

পাশাপাশি এদিন আইএনটিটিইউসির উদ্যোগে রথযাত্রায় অংশ নেন বিদ্যুৎমন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়৷ সঙ্গে ছিলেন বিধায়ক তমোনাশ ঘোষ৷ দেশবন্ধু পার্কে রথের দড়ি টানেন ক্রেতা ও সুরক্ষামন্ত্রী সাধন পাণ্ডে৷ মাহেশের রথে পুজো দেন তৃণমূল সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়৷ গড়িয়ায় অরুপ বিশ্বাস, সল্টলেকে সুব্রত মুখোপাধ্যায়, ববি হাকিম, বিধাননগরের মেয়র সব্যসাচী দত্ত রথযাত্রায় অংশ নেন৷