নিউজ ডেস্ক, কলকাতা: ‘মুখ্যমন্ত্রী পদ ছাড়তে চেয়েছিলাম।’ দু’দিনের নৈঃশব্দ ভেঙে শনিবার একথা বলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সাধারণ মানুষ মমতার এই বক্তব্য কীভাবে নিচ্ছেন তা জানা নেই, তবে একসময়ের সহযোগী মুকুল রায় বললেন, ‘লিখে রাখুন, মমতা ব্যানার্জী কোনোদিন পদত্যাগ করবেন না।’

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাংবাদিক বৈঠকের পর রবিবার সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন বিজেপি নেতা মুকুল রায়। বাংলায় বিজেপির অভাবনীয় উত্থানের পিছনে যিনি মূল কারিগর বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল। আর সেখানেই তিনি বলেন, ‘মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কোনোদিন পদত্যাগ করবেন না। যতদিন না মানুষ তাঁকে গণতান্ত্রিক অধিকার প্রয়োগ করে আস্তাকুঁড়েয় নিক্ষেপ করবেন, ততদিন উনি পদক্ষেপ করবেন না।’

তাঁর দাবি, নেহাতই সংবাদমাধ্যমে হেডলাইন করার জন্য এরকম একটি কথা বলেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন, পদত্যাগের ইচ্ছা ছিল, দল তাঁকে যেতে দেয়নি। মুকুলের প্রশ্ন, ‘দলটা কে? দলটাই তো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।’ মমতার বক্তব্যকে ‘নাটক’ বলেও উল্লেখ করেন তিনি। বলেন, ‘মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজেই ইস্তফা পত্র লিখেছেন, নিজের কাছেই রেখেছেন, নিজেই ইস্তফা গ্রহণ করেননি, আবার নিজেই হেডলাইন করার জন্য বলছেন পদত্যাগের ইচ্ছে ছিল।’ মুকুলের মন্তব্য, ক্ষমতায় থাকার যে স্বাদ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পেয়েছেন, তা তিনি ছাড়বেন না।’

এদিন মমতাকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, ‘বাংলার মানুষের রায় মাথা পেতে নিন। গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা ফিরিয়ে আনুন।’ চাকদায় বিজেপি কর্মী খুন হওয়ার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার ফিরিয়ে দিন।’ তিনি এও জানান যে বিজেপির তরফ থেকে দলীয় কর্মীদের অনুরোধ করা হয়েছে, ‘যে আমাদের আনন্দে যাতে কারও ক্ষতি না হয়’, সবাইকে সংযত থাকতে অনুরোধ করা হয়েছে।

এদিন তিনি হিসেব দিয়ে দেখান কোন কোন বিধানসভায় বিজেপি জিতেছে। আর যেখানে জেতেনি, সেখানেও মার্জিন খুব একটা বেশি নয়। ঘাটাল লোকসভা কেন্দ্রে কীভাবে ছাপ্পা হয়েছে, সেই প্রমাণও দেন মুকুল রায়। বলেন, কোনও বুথে দেখা গিয়েছে ৯৯০ টা ভোট পড়েছে, সবকটাই তৃণমূলে। বিজেপি শূন্য পেয়েছে।’ মুকুলের দাবি, ‘এটা হতে পারে না।’

লোকসভা ভোটে রাজ্যে বিপুল সাফল্য বিজেপির। ২ থেকে সাংসদ সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১৮। এরপরই শনিবার সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে মমতা বলেন,’মুখ্যমন্ত্রী পদ ছাড়তে চেয়েছিলাম। দল রাজি হয়নি।’