স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: ফের রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উদ্দেশ্যে তোপ দাগলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি তথা মেদিনীপুরের সাংসদ দিলীপ ঘোষ৷

উত্তর ২৪ পরগনার নৈহাটি রেল মাঠে ব্যারাকপুর লোকসভায় বিজেপির বিজয় সমাবেশে যোগ দিয়ে তিনি বললেন, “নবান্ন ছেড়ে রাস্তায় ঘুরে ঘুরে বাংলার মানুষকে খেপানোর চেষ্টা করছেন মুখ্যমন্ত্রী। যেখানে যাচ্ছেন, সেখানেই মানুষকে খেপিয়ে তুলছেন তিনি । হিন্দু মুসলিম করার চেষ্টা হল এতদিন, এখন বিহারী বাঙালি করার চেষ্টা করছে। মুখ্যমন্ত্রীর কাজ প্রশাসন সামলানো, কিন্তু তিনি প্রশাসন সামলাতে ব্যর্থ। তিনি এখন নবান্ন ছেড়ে রাস্তায় রাস্তায় ঘুরছেন । যেখানে যত খুন হচ্ছে, বিজেপির নামে চালানোর চেষ্টা করছে। মানুষ জানে এসব কারা করছে। বিজেপি হিংসায় বিশ্বাস করে না। বাংলার মানুষ ভীষণ জাগ্রত। বাংলার মানুষ সব বোঝে, সঠিক সময়ে সঠিক সিদ্ধান্ত নিয়ে তৃণমূল কংগ্রেসকে বাংলা থেকে তাড়িয়ে ছাড়বে। বাংলার মানুষ বিচার করবে জয় শ্রী রাম সঠিক না তৃণমূল কংগ্রেস সঠিক। ওই দলে এখন ভাল লোক কেউ নেই। যারা ছিল সবাই দল ছেড়ে পালাতে শুরু করেছে। ওই দলে এখন কিছু তোলাবাজ, চোর, ডাকাত রয়েছে ।”

প্রসঙ্গত, আগামী ১৪ই জুন বীজপুরে তৃণমূল কংগ্রেসের সাংগঠনিক কাঠামো পুনরুদ্ধারে আসার কথা রয়েছে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। এদিন অর্জুন সিংকে সেই বিষয়ে সাংবাদিকরা প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, “রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী কে বীজপুরে ও জয় শ্রী রাম ধ্বনি দিয়ে স্বাগত জানানো হবে । রামের নাম শুনলে ভূত পালিয়ে যায়, উনি কেন খেপে যাচ্ছেন বুঝতে পারছি না। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দল ২০০৯ সালে যে পরিস্থিতিতে ছিল, বিজেপি এখন সেই পরিস্থিতিতে আছে। দু’বছর লাগবে না, তার অনেক আগেই বাংলার সরকার পরিবর্তন হবে। পুলিশও বর্তমানে রাজ্যের পরিস্থিতি বুঝতে পারছে ।”

এদিন দিলীপ ঘোষ বলেন, “এরপর রাজ্যে পুরসভা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। মানুষ আমাদের পক্ষে রয়েছে। দলীয় কর্মীরা মানুষের পাশে থেকে কাজ করুন, পুরসভাগুলিও আমাদের দখলে আসবে। আমরা কোন রাজনৈতিক দলের কার্যালয় দখল করিনি। যে কার্যালয় গুলিতে এখনো তৃণমূল কংগ্রেসের পতাকা উড়ছে, সেই কার্যালয়ের দেওয়ালে আঁচড় কাটলে দেখবেন লাল বা গেরুয়া রঙ দেখা যাচ্ছে। আসলে একটা সময় ওই কার্যালয়গুলি বিজেপি বা অন্য দলের থেকে তৃণমূল কংগ্রেস দখল করে রেখেছিল। এখন ক্লাব, সংগঠন সব ক্ষেত্রেই সাধারন মানুষ নিজেরাই তৃণমূল কংগ্রেসের পতাকা ফেলে দিয়ে বিজেপির পতাকা লাগাচ্ছে।”

এদিন নৈহাটি রেল মাঠে বিজেপির এই বিজয় সমাবেশের অনুষ্ঠানে সাংসদ হিসেবে জয়ের জন্য দিলীপ ঘোষ এবং অর্জুন সিংকে সম্বর্ধনা জ্ঞাপন করে বিজেপির বারাকপুর জেলা সংগঠনের শীর্ষ নেতৃত্বরা। এদিনের জনসভায় রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন বারাকপুর লোকসভা কেন্দ্রের সাংসদ অর্জুন সিং, ভাটপাড়া পুরসভার বিজেপির পুরপ্রধান সৌরভ সিং, বারাকপুর সাংগঠনিক জেলার সভাপতি ফাল্গুনী পাত্র সহ কয়েক হাজার বিজেপি কর্মী সমর্থক।