নিউজ ডেস্ক, কলকাতা: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সংখ্যালঘুদের ‘গরু’ বললেন! ওনাকে ব্যাখ্যা দিতে হবে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাংবাদিক বৈঠকের জবাবে এমন কথাই বললেন তাঁর একসময়ের সঙ্গী মুকুল রায়।

শনিবার মমতা সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন। এক ইফতারে আমন্ত্রণের কথা বলতে গিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘যে গোরু দুধ দেয়, তার লাথি খাওয়াও উচিৎ।’ যেহেতু বারবার তৃণমূলনেত্রীর বিরুদ্ধে মুসলিম তোষণের অভিযোগ তোলেন বিরোধীরা, তাই সেই প্রসঙ্গ নিজেই টেনে এনে মমতা বলেন, ‘আমি মুসলিম তোষণ করি, আমি ইফতারে যাব। আপনারাও আসবেন।’

মুখ্যমন্ত্রীর এই বক্তব্য নিয়ে স্বাভাবিকভাবেই বিতর্কের ঝড় ওঠে রাজনৈতিক মহলে। তাই বিজেপি কিংবা মুকুল রায়ের তরফ থেকে প্রতিক্রিয়াও খুবই স্বাভাবিক। রবিবার বিকেলেই রাজ্য বিজেপির দফতর থেকে সাংবাদিক বৈঠক করে মুকুল রায় বলেন,’মুসলিম সম্প্রদায় কি গরু? মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে এর ব্যাখ্যা দিতে হবে।’

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বক্তব্য উল্লেখ করে মুকুল বলেন, ‘মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বুঝিয়ে দিলেন যে উনি মুসলিমদের গরু হিসেবে ট্রিট করেন। এই হচ্ছে তাঁর মূল্যায়ন। সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষকে ভেবে দেখার জন্য অনুরোধ রইল।’

লোকসভা নির্বাচনের প্রচার চলাকালীন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ রাজ্যে ৩৩টি সভা করেছেন৷ প্রতিটি সভাতেই তাঁরা মমতার সংখ্যালঘু তোষণ নিয়ে সরব হয়েছেন৷ বাংলাদেশী অনুপ্রবেশকারীরাই যে মমতার ভোটব্যাংক তা স্পষ্টভাবে জানিয়েছেন মোদী-শাহ৷

আর তারপরই রাজ্যে তৃণমূলের খারাপ ফল। তাই একরকম মেজাজ হারিয়েই মুসলিম তোষণ নিয়ে এমন মন্তব্য করেন মমতা। মুকুল রায় এদিন তৃণমূলনেত্রীকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘মুসলিমদের অনুষ্ঠানে ১০০ বার যান। কোনও অসুবিধা নেই। শুধু বাংলার ভাষা, সংস্কৃতি অনেক নীচে নামিয়ে এনেছেন, আর নীচে নামাবেন না।

মমতার এই মন্তব্য নিয়ে সরব হয়েছেন বিজেপির আর এক নেতা বাবুল সুপ্রিয়ও। তিনি ট্যুইটারে মমতার ভিডিও পোস্ট করে ভাষার নিন্দা করেছেন।