নিউজডেক্স, কলকাতা: চিকিৎসক বনাম রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী গত তিনদিন এই ভয়ঙ্কর গেম শো দেখতে হয়েছে রাজ্যবাসীকে। কার্যত রাজ্যের গোটা চিকিৎসা ব্যবস্থাটায় বসে যেতে চলেছে। মুখ্যমন্ত্রী তথা স্বাস্থ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হস্তক্ষেপে ডাক্তারদের আন্দোলন ওঠার একটা সম্ভবনা তৈরি হলেও বৃহস্পতিবার এসএসকেএমে মুখ্যমন্ত্রী হুমকির পর পরিস্থিতি ক্রমশ খারাপের দিকে।

সোশ্যাল মিডিয়া বিশেষ করে ফেসবুক ব্যবহারীকারীদের এক বড় অংশ বলছেন NRS-এ জুনিয়র ডাক্তারদের প্রতি মুখ্যমন্ত্রী যদি সহানুভূতিশীল হতেন তাহলে রাজ্যের মানুষকে চিকিৎসা সংক্রান্ত এরকম দুর্ভোগের মধ্যে পড়ত হত না।

জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়া মাধ্যম ফেসবুকে একটি সম্প্রতি একটি পোস্ট ভাইরাল হয়েছে। যেখানে পোস্টটির অজ্ঞাত পরিচয় লেখক একটি কাল্পনিক অবস্থার কথা লিখেছেন৷ পোস্টটিতে লেখা হয়েছে, ধরুন উনি (মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়) এসে পরিবহর (NRS-এ আঘাত পাওয়া জুনিয়র চিকিৎসক) মাথায় হাত রেখে বললেন তুমি তো আমাদের ডাক্তার। তাড়াতাড়ি সুস্থ হও। বাইরে তো রোগীরা অপেক্ষা করছে। তারপর কর্মবিরতিতে থাকা ডাক্তারদের দিকে ঘুরে বললেন, আপনাদের সুরক্ষার দিকটা আমি দেখছি। আপনারা কাজে ফিরুন। ভবিষ্যতে আপনাদের গায়ে একটি আঁচড়ও যাতে না লাগে তার চেষ্টা করব। ওঁর (মুখ্যমন্ত্রীর) এই কথা শুনে ডাক্তাররা আস্বস্ত হয়ে কাজে ফিরলেন। সাধারণ মানুষের ভোগান্তি দূর হল। এটা তো উনিই করতেই পারতেন। পোস্টটির লেখকের নাম জানা না গেলেও সংগৃহীত নামে অনেক ফেসবুক ব্যবহারকারী এই পোস্ট শেয়ার করেছেন।

বৃহস্পতিবার এসএসকেএম থেকে কী এমন বার্তা দিয়েছেন মুখ্য, যার ফলে রাজ্যে ডাক্তাররা গণ ইস্তফা দেওয়ার রাস্তা বেছে নিচ্ছে?

কর্মবিরতিতে থাকা ডাক্তরদের পক্ষ থেকে বারবার দাবি করা হচ্ছিল স্বাস্থ্যমন্ত্রী বিষয়টি নিয়ে পদক্ষেপ করুন। এবং উনি(মুখ্যমন্ত্রী) প্রতিশ্রুতি দিন এরকম ঘটনা আর ঘটবে না৷ সেই দাবি মেনে মুখ্যমন্ত্রী হস্তক্ষেপ করলেন বটে তবে এসএসকেএমে এসে ডাক্তারদের কড়া বার্তা শোনাতে ছাড়লেন না।

স্পষ্ট ভাষায় বললেন, যে ডাক্তাররা মার খেয়েছেন সেটা ঠিক নয়৷ কিন্তু রোগীদের পরিষেবা দিতে হবে। পরিষেবা না দিলে ডাক্তার হওয়া যায় না। কয়েকজন নাটক করছে। চার ঘন্টার মধ্যে কাজ শুরু না করলে হস্টেল খালি করে দিন। যারা কাজ করবে না তাদের সঙ্গে নেই সরকার। এখানেও বহিরাগতরা এসে গন্ডোগোল পাকানোর চেষ্টা করছে। যত নেতা আছেন ধর্ণায় আসুন। কাজে যোগ না দিলে কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া হবে, বলেও হুশিয়ারি দেন মমতা। এরপরই বিরক্ত চিকিৎসকরা প্রতিবাদে কর্মবিরতি ও আন্দোলনকে শক্ত করে।

প্রসঙ্গত, সোমবার এনআরএস মেডিকেল কলেজে এক রোগী মৃত্যুকে কেন্দ্র করে ডাক্তার এবং চিকিৎসাশাস্ত্রের পড়ুয়াদের উপর চড়াও হন রোগীর পরিবার৷ অভিযোগ পরে বেশি সংখ্যায় লোক নিয়ে এসে ডাক্তারি ছাত্রদের উপর হামলা চালানো হয়৷ এতে গুরুত্বর যখম হয়ে আইসিইউতে ভর্তি রয়েছেন এক জুনিয়র ডাক্তার পরিবহ মুখোপাধ্যায়৷