কলকাতা: রাজনৈতিক ক্ষেত্রে জল গড়িয়েছে অনেক। একসময়ের মধুর সম্পর্ক তিক্ত হয়েছে। দলবদলে গিয়ে ঠেকেছে বিচ্ছেদ। তবে ব্যক্তিগত সম্পর্কে এখনও স্নেহের নমুনা রয়েছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও শোভন চট্টোপাধ্যায়ের।

ষষ্ঠীর দিনই সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে একথা জানিয়েছেন বৈশাখী। শোভনেক কুর্তা পাঠানোর জন্য ধন্যবাদ জানিয়েছেন বৈশাখী। তিনি বলেছেন, উপহার সবসম্য ভালোবার চিহ্ন স্বরূপ।

ষষ্ঠীর দিনই সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে একথা জানিয়েছেন বৈশাখী। শোভনেক কুর্তা পাঠানোর জন্য ধন্যবাদ জানিয়েছেন বৈশাখী। তিনি বলেছেন, উপহার সবসম্য ভালোবার চিহ্ন স্বরূপ।

কৃতজ্ঞতা জানানোর নাকি ভাষা পাচ্ছেন না বৈশাখী।

সেইসঙ্গে তিনি আরও জানিয়েছেন দিদি অর্থাৎ মমতাকে শাড়ি উপহার পাঠিয়েছেন বৈশাখী। তাও আবার যেমন তেমন শাড়ি নয়, এক বিশেষ ধরনের শাড়ি পঠিয়েছেন।

বৈশাখী জানিয়েছেন, লকডাউনের আগে ভাইজাগে বেড়াতে গিয়েছিএলন তিনি।স এখানকার এক পোনডুরু নামে এক গ্রামে তৈরি হয় এক বিশেষ ধরনের শাড়ী। তিন মাস ধরে একটা শাড়ী তৈরি হয়, আর সেই শাড়ি নাকি পরেন পরেছেন জয়ললিতা সহ দক্ষিণ ভারতের রাজনীতিকরা।

সেই শাড়ীই অর্ডার দিয়েছিলেন বৈশাখী। আর সেটা অতিমারীর জন্য দেরিতে এসে পৌঁছলেও শেষমেস সেই শাড়ী মুখ্যমন্ত্রীকে পাঠিয়েছেন বৈশাখী।

৮ সেপ্টেম্বর রাজ্য বিজেপির কর্মসমিতির তালিকা অনুমোদন করেছিলেন সভাপতি দিলীপ ঘোষ। সেই তালিকায় শোভন চট্টোপাধ্যায়ের নাম থাকলেও বৈশাখী বন্দোপাধ্যায়ের নাম ছিল না। অথচ রাজ্য কমিটির যে তালিকা প্রকাশিত হয়েছে, তাতে অনেক নতুন মহিলা মুখ দেখা গিয়েছে। যেমন, জোতির্ময়ী শিকদার, অর্চনা মজুমদার, দেবযানী সেনগুপ্ত, প্রফেসর বীথিকা মণ্ডল, বিশ্বভারতীর প্রফেসর পুষ্পিতা, বিশিষ্ট ক্যান্সার বিশেষজ্ঞ মধুছন্দা কররা কমিটিতে জায়গা পেয়েছেন।

এতেই চরম ক্ষুব্ধ হয়েছিলেন শোভন। সংবাদমাধ্যমে অসন্তোষও প্রকাশ করেছিলেন তিনি। শোভন চট্টোপাধ্যায়ের আসল ক্ষোভ যে বৈশাখীর পদ না পাওয়া তা বুঝতে অসুবিধা হয়নি বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের। তারপরই শোভনের পাশাপাশি বৈশাখীর কাছেও পৌঁছে যায় বিজেপির রাজ্য কর্মসমিতি বৈঠকে যোগ দেওয়ার ভার্চুয়াল লিঙ্ক।

জেলবন্দি তথাকথিত অপরাধীদের আলোর জগতে ফিরিয়ে এনে নজির স্থাপন করেছেন। মুখোমুখি নৃত্যশিল্পী অলোকানন্দা রায়।