নিউজ ডেস্ক, কলকাতা: সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনের তৃতীয় দফায় চলছে ভোটগ্রহণ পর্ব৷ রাজ্যের পাঁচটি লোকসভা কেন্দ্রে ভোটগ্রহণকে কেন্দ্র করে পরিস্থিতি উত্তপ্ত৷ তারই মধ্যে ইটাহারে কেন্দ্রীয়বাহিনীর বিরুদ্ধেই অভিযোগ উঠল৷ বুথে উপস্থিত ভোটারদের প্রভাবিত করার অভিযোগ উঠল কেন্দ্রীয়বাহিনীর বিরুদ্ধে৷

এই বিষয়ে নির্বাচন কমিশনের কাছে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে৷ অভিযোগ জানিয়েছেন, তৃণমূলের জেলা সভাপতি অমল আচার্য এই বিষয়টি জানানো হয়েছে বিশেষ পর্যবেক্ষককেও৷ তারা বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করছেন বলে জানিয়েছেন৷

 

তবে শুধু ইটাহার নয়, মালদহের ইংরেজবাজারের ১৬৬ এবং ১৬৭ নম্বর বুথেও কেন্দ্রীয়বাহিনীর একই ধরণের প্রভাব খাটানোর অভিযোগের কথা উঠে এসেছে৷ এই বিষয়টিকে হাতিয়ার করেই নির্বাচনী প্রচারসভা থেকে হুঙ্কার দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ আরামবাগ, খানাকুল এবং উলুবেড়িয়া কেন্দ্রের বড়গাছিয়াতে নির্বাচনী সভা ছিল মমতার। এখান থেকেই তিনি বিজেপিকে তোপ দেগে বলেন, বিজেপির কথা শুনে কেন কাজ করবে সেন্ট্রাল ফোর্স৷ তাদের জনগণের জন্য কাজ করা উচিত৷ ক্ষমতায় মোদী থাকবেন না, তাই বিজেপির হয়ে কেন্দ্রীয়বাহিনী ভোটারদের প্রভাবিত করতে পারে না৷

একদিকে যেখানে কেন্দ্রীয়বাহিনীর প্রভাব খাটানো নিয়ে প্রশ্ন এবং অভিযোগ উঠছে৷ অন্যদিকে বুথে শাসকদলকে ছাপ্পা দিতে সাহায্য করছেন খোদ প্রিসাইডিং অফিসার, এমন অভিযোগও উঠে এসেছে৷ অভিযোগ, রতুয়ার বাহারালে ৭৯ নম্বর বুথে ছাপ্পা ভোট দেওয়ার অভিযোগ ওঠে। শাসকদল তৃণমূলের বিরুদ্ধে ছাপ্পা ভোট দেওয়ার অভিযোগ তোলে বিরোধী বিজেপি ও কংগ্রেস।

তাদের অভিযোগ, প্রিসাইডিং অফিসারের কাছে বার বার নালিশ জানিয়েও কোনও লাভ হয়নি বলেও অভিযোগ। এরপরেও পুরো বিষয়টি কমিশনকে জানায় বিরোধীরা। এমনকি অভিযুক্ত প্রিসাইডিং অফিসারের বিরুদ্ধে বেশ কিছু প্রমাণও তুলে দেন বিরোধীরা। আর তা পাওয়ার পরেই নড়েচড়ে বসে নির্বাচন কমিশন। রাতারাতি সরিয়ে দেওয়া হয় অভিযুক্ত অফিসারকে।