কলকাতা: প্রায় ৪৮ ঘণ্টা কাটতে চলল। অথচ এখনও রাজ্যের একাধিক জায়গা ডুবে অন্ধকারে। বিদ্যুৎহীন রাজ্যের বেশ কিছু এলাকা। নেই ইন্টারনেটও। কয়েদিন সময় লাগতে পারে বলে আগেই জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

শুক্রবার সকালেও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানালেন সব সংযোগ ফেরানোর জন্য প্রশাসনিক স্তরে সবরকমের চেষ্টা চলছে। এদিন কলকাতায় এসেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। বিমানবন্দরে তাঁকে অভ্যর্থনা জানাতে যাওয়ার আগে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ”আমার বাড়িতেই টিভি চলছে না।” তিনি জানিয়েছেন, মোবাইল কানেকশন ছাড়া আর কিছু নেই ।

তিনি বলেন, এটা জাতীয় বিপর্যয়ের থেকেও বেশি। সব শেষ হয়ে গিয়েছে বলে উল্লেখ করে মমতা বলেন, ‘একটু সময় লাগবে তবে সব ঠিক হয়ে যাবে। ইতিমধ্যেই কাজ শুরু হয়ে গিয়েছে।’

নবান্ন থেকে বেরিয়ে একাধিক জায়গায় পরিদর্শনে গিয়েছিলেন বলেও জানান তিনি। তাঁর কথায়, ”একদিকে লকডাউন চলছে, করোনা আছে আবার সাইক্লোন। তিনটি চ্যালেঞ্জের সঙ্গে আমরা লড়াই করছি।”

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বৃহস্পতিবারই জানান, “আমফানের জন্য রাজ্যে কতটা ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে তা খতিয়ে দেখে তা কেন্দ্রের কাছে পেশ করা হবে। তার পর দেখা যাক কত কী দেয় কেন্দ্র”। বৃহস্পতিবার নবান্নে এভাবেই প্রধানমন্ত্রীর কাছে বাংলায় আসার আবেদন রাখেন মুখ্যমন্ত্রী। তাঁর এহেন মন্তব্যের প্রায় ঘন্টাখানেকের মধ্যেই খবর আসে যে, বাংলায় আসছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

দমদম বিমানবন্দর থেকে হেলিকপ্টারে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকাগুলি দেখবেন প্রধানমন্ত্রী। এরপর ১১.২০ মিনিটে বসিরহাটে প্রধানমন্ত্রীর প্রশাসনিক বৈঠক করার কথা রয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর এই গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের থাকার কথা রয়েছে। সেই প্রশাসনিক বৈঠক সেরেই কলকাতায় ফেরার কথা প্রধানমন্ত্রীর।

সেখান থেকে ওডিশার উদ্দেশ্যে রওনা দেবেন প্রধানমন্ত্রী। সুপার সাইক্লোন আমফানে বাংলার পাশাপাশি ওডিশাতেও আছড়ে পড়েছে। সেখানে এতটা তীব্রতা ছিল না। তবে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে সে রাজ্যেও। এমনটাই জানা যাচ্ছে। তাই বাংলার অবস্থা দেখেই ওডিশাতে চলে যাবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV