স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে সঙ্গে হিটলারের তুলনা কিছু নয়। ‘হিটলার’ – শব্দটিকে পদবী হিসেবে ধরা হলে নিঃসন্দেহে বলা যেতে পারে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে এই পদবীকে রাজ্য এবং কেন্দ্রীয় বিজেপি নেতারা বহুবার বহুবার ভূষিত করেছেন। তবে এককালে ঘোরতর কমিউনিস্ট বিরোধী মমতাকে উত্তর কোরিয়ার প্রধান নেতা কিম জং উনের সঙ্গে তুলনা করা হবে তা মমতাও কি কখনও ভেবেছেন – প্রশ্ন উঠেছে রাজনৈতিক মহলে।

কেন্দ্রীয় ক্ষুদ্র শিল্প প্রতিমন্ত্রী গিরিরাজ সিং কলকাতায় প্রচারে আসে মুখ্যমন্ত্রী মমতাকে ‘কিম জং উন’ – এর সঙ্গে তুলনা করে গিয়েছেন। উত্তর কোরিয়ার ওয়ার্কার্স পার্টির চেয়ারম্যান আর সর্বভারতীয় তৃণমূল কংগ্রেসের সভানেত্রীকে একই আসনে বসিয়েছেন গিরিরাজ। মিলিয়ে দিতে চেষ্টা করেছেন পিয়ং ইয়ং সিটি এবং কলকাতাকে। এযেন এক অদ্ভুত সমাপতন। যে সিপিএমকে মমতা একসময় জগদ্দল পাথর বলতেন, কমিউনিস্টদের বলতেন খুনে , সেই লাল ঝান্ডার তলাতেই মমতাকে দেখতে চেয়েছে গেরুয়া শিবিরের মন্ত্রী – হিন্দুত্বকে পোস্টারবয় – গিরিরাজ সিং। বৃহস্পতিবার, গিরিরাজ বলেন, “মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পশ্চিমবঙ্গে পলিটিক্যাল টেরোরিজম চালাচ্ছে। যেমন কিম জং উন উত্তর কোরিয়ার চালান।”

গিরিরাজ আরও কথা , ” আজ থেকে নয় পঞ্চায়েত নির্বাচনেও পশ্চিমবঙ্গে একই অবস্থা ছিল। উত্তর কোরিয়াতেও তাই হয়। যে কিম জং এর বিরোধিতা করে তার গলা কাটা যায়।”

গিরিরাজের আশঙ্কা রাজ্যে জয়ী বিজেপি প্রার্থীরা সার্টিফিকেট পাবেন না। এখানকার সব অফিসার মমতার কোথায় চলেন। নির্বাচন কমিশন তো ধারা 324 দিয়েছে। এবার সার্টিফিকেট দিতে কমিশনকে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে আলোচনায় বসতে হবে।