কলকাতা: ইতালি, সিঙ্গাপুরের পর এবার লগ্নির সন্ধানে চিনে পাড়ি জমাবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ আগামী জুনের প্রথম সপ্তাহে চিন সফরে যাবেন তিনি৷ বেজিং ও সাংহাই ‌সফর করতে পারেন তিনি। মূলত, উৎপাদন শিল্পে লগ্নি টানতেই মমতার চিন সফর৷    এছাড়াও স্বাস্থ্য পরিষেবা, পর্যটন, তথ্যপ্রযুক্তি ক্ষেত্রেও বাণিজ্যিক সম্ভাবনা রয়েছে। বেজিং-সাংহাই সফরের মাঝেই চিনা কমিউনিস্ট নেতাদের সঙ্গেও দেখা করতে পারেন মমতা৷ ইতোমধ্যেই চিনা কমিউনিস্ট পার্টির আমন্ত্রণও পেয়েছেন তিনি৷

দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় আসার পর রাজ্যে শিল্পস্থাপন ও কর্মসংস্থান গড়ে তোলা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারের কাছে সব থেকে বড় চ্যালেঞ্জ৷ কেননা, রাজ্যে জমি অধিগ্রহণ নীতির প্রসঙ্গে তৃণমূল সরকারের অবস্থান ‘শিল্পবিরোধী’, দাবি বিরোধীদের৷ রাজ্যে শিল্প সম্ভাবনা থাকলেও জমি অধিগ্রহণ সংক্রান্ত সমস্যার জন্য বেশ ব্যাকফুটে রাজ্য৷ পাশাপাশি, গতবারের নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি গলার কাঁটায় হয়ে দাঁড়িয়েছে৷ ফলে, চিন সফরে শিল্প আনা মুখ্যমন্ত্রীর কাছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ৷ কেননা, গত বছর শেষের দিকে বিশ্ববঙ্গ শিল্প সম্মেলনে বেশ কয়েক কোটি টাকার লগ্নির প্রস্তাব এলেও তার সিংহভাগ বাস্তবায়িত হয়নি৷ ফলে, শিল্প স্থাপন নিয়ের বিশেষ বেশ চিন্তিত নবান্নের কর্তারা৷ ফলে, আসন্ন চিন সফরে উৎপাদন শিল্পের রাজ্যে লগ্নি টানার ব্যাপারে তৎপর হবেন মুখ্যমন্ত্রী, তা আর বলার অপেক্ষাই রাখে না৷

নবান্ন সূত্রে জানা গিয়েছে, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে চিনে যাওয়ার আমন্ত্রণ জানিয়েছেন চিনা কনসাল জেনারেল। ভারত-চিন বাণিজ্যিক সম্পর্ক নিয়ে সভায় কলকাতায় চিনের কনসাল জেনারেল মা ঝানউ জানান, তাঁরা সে দেশের জিয়াংসু এবং ইউনান প্রদেশ সফরের জন্য বেশ কিছু দিন আগেই মুখ্যমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। পশ্চিমবঙ্গকে সেখানে তুলে ধরা ও দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যের আরও বিস্তারই এই আমন্ত্রণের মূল উদ্দেশ্য।