স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: বামেদের নিজেদের চরকায় তেল দেওয়ার পরামর্শ দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যা নিয়ে শুক্রবার তুমুল হট্টগোল হল বিধানসভায়। এদিন বামেদের আক্রমণ করে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বললেন, ‘ভবানীপুর নিয়ে আমি দেখে নেব, আপনারা আগে যাদবপুর সামলান।’

রাজ্যে বিজেপির উত্থানের দায় কার। তা নিয়ে বিধানসভায় তুমুল তরজা মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে বিরোধীদের। এদিন বাম বিধায়কদের তরফে দাবি করা হয়, বামেদের ভোট নয়, বিজেপিতে গিয়েছে তৃণমূলের ভোট। এই নিয়ে শোরগোল ওঠে বিধানসভায়। এরপরই মুখ্যমন্ত্রী কটাক্ষ করে বলেন, ‘সবাই সবার মতো রাজনৈতিক বক্তব্য রেখে অপপ্রচার করেছেন। রাজনৈতিক দূষণ তাদের মধ্যে এত গ্রাস করেছে তারা সব ভুলে গিয়েছে। আমার দলের ফলাফল নিয়ে বামেদের ভাবতে বলিনি। যাদবপুরে কী হয়েছে? আগে নিজেদের চরকায় তেল দিন।’

রাজ্যে খুন-সন্ত্রাস নিয়ে শাসকদলের বিরুদ্ধে সবসময়ই তোপ দাগে বিরোধীরা। এদিন তার জবাব দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ বিরোধীরা পরিসংখ্যান তুলে ধরে বাংলায় হিংসার বাড়বাড়ন্ত নিয়ে সরব হতেই পালটা দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। বলেছেন, ‘রাজ্যে বাম আমলে শেষ দশ বছরে ৬৩৬ জন খুন হয়েছেন কিন্তু এই রাজ্য সরকারের আমলে মাত্র ১৫৪ জন খুন হয়েছেন। এটাও আমরা চাই না। আমরা চাই না কোন দলই খুন নিয়ে রাজনীতি করুক।’

উল্লেখ্য, সামনেই যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা বিভাগের ছাত্র সংসদ নির্বাচন। তাতে চারটি পদের প্রত্যেকটিতে প্রার্থী দিয়েছে এভিবিপি৷ এছাড়া বেশ কয়েকজন শ্রেণি প্রতিনিধি আসনেও প্রার্থী দিয়েছে আরএসএস-এর ছাত্র সংগঠন। এতেই সিঁদুরে মেঘ দেখছে তৃণমূল। গত বছর থেকেই যাদবপুরে ঘাঁটি গাড়ার চেষ্টায় রয়েছে এভিবিপি৷ বাবুল সুপ্রিয় কাণ্ডের পর বিশ্ববিদ্যালয়ে সংগঠনের প্রভাব বেড়েছে বলে দাবি অনেকের।’ এছাড়া লোকসভা নির্বাচনে যাদবপুরে পিছিয়ে ছিলেন সুজন চক্রবর্তী।