কলকাতা: ইডেন বেল বাজিয়ে ঐতিহাসিক ডে-নাইট টেস্টের উদ্বোধন করবেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ তবে এই রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বের সঙ্গে ক্রিকেটের নন্দনকাননে গোলাপি বলের লড়াইয়ে উপস্থিত থাকবেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ।

২২ নভেম্বর ইডেনে বসছে ভারতে প্রথম দিন-রাতের টেস্টের আসর৷ বোর্ড প্রেসিডেন্টের এ এক ঐতিহাসিক পদক্ষেপ৷ টেস্টের প্রথম দিনের খেলার পরে রাতে বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের আয়োজন করতে চলেছে সিএবি। আগের এই কথা জানিয়েছিলেন সিএবি সচিব অভিষেক ডালমিয়া৷ মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সিএবি সচিব বলেন, ‘এটি একটি ঐতিহাসিক ঘটনা৷ সুতরাং এই টেস্ট ম্যাচ স্মরণীয় করে রাখার আমরা সবরকম চেষ্টা করছি৷ প্রায় দু’ দশক পর ভারত-বাংলাদেশ টেস্ট খেলতে নামছে৷ বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর জন্য আমরা সবরকম ব্যবস্থা করব৷’

প্রথম দিনের খেলার পর প্রাক্তন অধিনায়কদের সংবর্ধনা দেওয়ার পাশাপাশি বক্তব্য রাখবেন উপস্থিত রাজনৈতিক হেভিওয়েটরা। ক্রিকেটারদের প্রতিনিধি হিসেবে বক্তার ভূমিকায় দেখা যেতে পারে সচিন তেন্ডুলকরকে। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ‘সেঞ্চুরি অফ সেঞ্চুরিজ’-এর মালিককে অনুরোধ করা হয়েছে ইডেনের ঐতিহাসিক টেস্টে উপস্থিতি থেকে দর্শকদের উদ্দেশে কিছু বলার জন্য।

কেরিয়ারে ১৯৯তম অর্থাৎ শেষের আগের টেস্ট ম্যাচটি ক্রিকেটের নন্দনকাননে খেলেছিলেন লিটল মাস্টার। এছাড়াও ইডেনে রয়েছে সচিনের নান স্মরণীয় মুহূর্ত। হিরো কাপের সেমিফাইনালে বল হাতে সচিনের ম্যাচ জেতানোর মতো বহু স্মরণীয় মুহূর্ত জড়িয়ে রয়েছে৷ এছাড়াও উপস্থিত থাকবেন রাহুল দ্রাবিড়ও৷ এছাড়াও ইডেনে ঐতিহাসিক টেস্টে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে ভারতের বিরুদ্ধে টেস্ট অভিষেক হওয়া বাংলাদেশ ও ভারতীয় দলের ক্রিকেটারদের৷

ইডেনে টেস্টে উপস্থিত থাকার বিষয়ে দু’ দেশের তিন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব ইতিমধ্যেই সবুজ সঙ্কেত দিয়েছেন বলে সিএবি-র তরফে জানা গিয়েছে। ঐতিহাসিক এই টেস্টে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকেও। যদিও প্রধানমন্ত্রীর দফতর থেকে এখনও পর্যন্ত কোনও উত্তর আসেনি বলে জানিয়েছে সিএবি৷ মঙ্গলবার বিকেলে কলকাতায় বাংলাদেশ দূতাবাসের ডেপুটি হাই-কমিশনার তৌফিক হাসান-সহ চার সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল ইডেনে এসে ২২ নভেম্বরের অনুষ্ঠানের সময়সূচি, ব্যবস্থাপনা নিয়েও পুঙ্খানুপুঙ্খ খোঁজখবর নেয়। দিন-রাতের টেস্ট উপলক্ষ্যে ইতিমধ্যেই জোরকদমে প্রস্তুতি চলছে ইডেনে। গণ্যমান্য অতিথিদের বসার ব্যবস্থা করা হয়েছে ক্লাব হাউসের প্রেসিডেন্ট বক্সে।