স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: সিএএ নিয়ে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে জোরদার আন্দোলন ঘোষণার পরেও জানুয়ারি মাসে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে বৈঠক করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। এবার বিজেপি ও মোদীর মন্ত্রীসভার সেকেন্ড ইন কম্যান্ডের মুখোমুখি হতে চলেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শুক্রবার কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের ডাকা বৈঠকে থাকছেন তিনি৷ দুজনের আলাদা বৈঠকেরও সম্ভবনা রয়েছে৷

২৫ জানুয়ারি অর্থাৎ গতকাল ভুবনেশ্বর গিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ আগামী শুক্রবার ভুবনেশ্বরের একটি পাঁচতারা হোটেলে হতে চলেছে ইস্টার্ন রিজিওনাল সিকিউরিটি কাউন্সিলের বৈঠক। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের পৌরহিত্যে এই বৈঠকে উপস্থিত থাকবেন ৫টি রাজ্য বাংলা, বিহার, ওড়িশা, ঝাড়খন্ড ও ছত্রিশগড়ের মুখ্যমন্ত্রী, মুখ্যসচিব ও স্বরাষ্ট্রসচিবরা। ওই বৈঠকে দেশের সাম্প্রতিক পরিস্থিতি, দিল্লির অশান্তি ইত্যাদি বিষয় নিয়ে সেখানে মমতা কিছু বলেন কি না, তা নিয়ে কৌতূহল রয়েছে রাজনৈতিক শিবিরে।

জাতীয় নিরাপত্তা এবং সীমান্তের পরিস্থিতি নিয়ে পশ্চিমবঙ্গ, ঝাড়খন্ড, বিহার, ওডিশা এবং সিকিমের মুখ্যমন্ত্রীদের নিয়ে প্রতিবছর এই বৈঠক হয়। গতবছর এই বৈঠক হয়েছিল নবান্নে। সেই বৈঠকে দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তৎকালীন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং। এবার এই বৈঠক হবে ভুবনেশ্বরে। সেই বৈঠকেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। সেইমতো মঙ্গলবারই ওডিশা গিয়েছেন তিনি। বৃহস্পতিবার ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়কের সঙ্গে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বৈঠক কথা রয়েছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের।

ইস্টার্ন রিজিওনাল সিকিউরিটি কাউন্সিলের বৈঠকের পর কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের সঙ্গে একান্তে বৈঠক হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। ওই বৈঠকে রাজ্যের পক্ষ থেকে রাজ্যের সঙ্গে সম্পৃক্ত সমস্ত অন্তর্দেশীয় বর্ডারের পরিস্থিতি নিয়ে একটি বিশেষ রিপোর্ট কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর হাতে তুলে দেওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে সূত্রের খবর। যদিও এই বৈঠকের বিষয়ে সরকারি তরফে এখনও কিছু জানানো হয়নি। উল্লেখ্য, গতবছর সেপ্টেম্বর মাসে বাংলার মুখ্যমন্ত্রী ও কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর মধ্যে বৈঠক হয়েছিল৷

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহর সঙ্গে মমতার প্রস্তাবিত বৈঠক নিয়ে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের প্রতিক্রিয়া, ‘‘আমি এই বৈঠকে খারাপ কিছু দেখছি না। সুন্দর প্রশাসন চালাতে একটি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করবেন, এটাই স্বাভাবিক।’’ একই সঙ্গে তাঁর খোঁচা, ‘‘মুখ্যমন্ত্রীর সিএএ বিরোধী আন্দোলন ব্যর্থ হয়েছে। হয়তো তাই এখন তিনি মুখ দেখিয়ে নমস্কার করতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে যাচ্ছেন।’’