কলকাতা: ব্যাংক সংযুক্তিকরণের বিরোধিতা করে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে চিঠি দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শুক্রবার তিনি প্রধানমন্ত্রীকে দেওয়া চিঠিতে এই সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনার আর্জি জানিয়েছেন। কারণ এভাবে ব্যাংক সংযুক্তিকরণের ফলে এই রাজ্যে থাকা প্রধান দুটি ব্যাংক ইউনাইটেড ব্যাংক অফ ইন্ডিয়া (ইউবিআই) ও এলাহাবাদ ব্যাংকের সদর দফতর কলকাতা থেকে অন্যত্র স্থানান্তরিত হওয়ার আশংকা করা হচ্ছে৷
এদিকে কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন এদিন এসেছিলেন কলকাতায়।

ফলে ব্যাংক সংযুক্তিকরণের বিরোধিতা করে প্রধানমন্ত্রীকে দেওয়া মুখ্যমন্ত্রীর চিঠির বিষয়ে কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রীকে জিজ্ঞাসা করা হয়৷ সে প্রসঙ্গে অবশ্য সীতারামন জানিয়েছেন, তিনি যেহেতু সেই চিঠি দেখেননি তাই এ বিষয়ে কোন মন্তব্য করতে পারছেন না।

প্রসঙ্গত, গত সপ্তাহে কেন্দ্র ঘোষণা করেছিল ১০টি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকে মিশিয়ে দিয়ে চারটি ব্যাংক করা হবে ৷ এই সিদ্ধান্তের ফলে এ রাজ্যের প্রধান দুটি ব্যাংক ইউনাইটেড ব্যাংক অফ ইন্ডিয়া (ইউবিআই) ও এলাহাবাদ ব্যাংকের নিজস্ব অস্তিত্ব নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। তাছাড়া রাজ্যে সদর দফতর থাকা গুরুত্বপূর্ণ ব্যাংক ইউকোকে জাতীয় ব্যাংকের বদলে আঞ্চলিক ব্যাংকের মর্যাদা দেওয়ার কথা উঠেছে। এর ফলে ব্যাংকিং ক্ষেত্রে কলকাতা গুরুত্ব হারাতে বসেছে বলে মনে করেছে বিভিন্নমহল। আর সে কথা জানিয়েই প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷

কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তের ফলে ইউনাইটেড ব্যাংক অফ ইন্ডিয়াকে পাঞ্জাব ন্যাশন্যাল ব্যাংকের সঙ্গে এবং এলাহাবাদ ব্যাংককে ইন্ডিয়ান ব্যাংকের সঙ্গে সংযুক্তিকরণ করা হবে। মুখ্যমন্ত্রীর আশংকা প্রকাশ করেছেন, এরফলে কলকাতা থেকে তাদের সদর দফতর যথাক্রমে দিল্লি ও চেন্নাইতে স্থানান্তরিত হতে পারে। বিভিন্ন ব্যাংক কর্মীদের সংগঠন আশংকা প্রকাশ করেছে , এভাবে সংযুক্তিকরণের ফলে ছাঁটাই বা স্বেচ্ছাবসর চালু এবং শাখার সংখ্যা কমতে পারে বলে৷ কারণ স্টেট ব্যাংকের সঙ্গে অন্যান্য কয়েকটি ব্যাংকের সংযুক্তিকরণের জেরে ১,৫০০টি শাখা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল। প্রধানমন্ত্রীকে দেওয়া চিঠিতেও মুখ্যমন্ত্রী সেই সব বিষয়ও উল্লেখ করেছেন। তাছাড়া এমন সিদ্ধান্তের ফলে এ রাজ্যের উন্নয়ন ব্যহত হবে বলে মনে করছেন মুখ্যমন্ত্রী৷