কলকাতা: করোনার সেকেন্ড ওয়েভ তাণ্ডব চালাচ্ছে দেশজুড়ে। রেকর্ড সংক্রমণ দেশে। রাজ্যে-রাজ্যে সংক্রমণের বিদ্যুৎ গতি। পরিস্থিতি মোকাবিলায় আজ সন্ধেয় মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে বৈঠক করবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। করোনা মেকাাবিলায় আরও কী কী পদক্ষেপ করা যায় সেব্যাপারে মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে আলোচনা করবেন প্রধানমন্ত্রী। তবে মোদীর ডাকা এই বৈঠকে থাকছেন না পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এর আগেও প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ডাকা একাধিক বৈঠক এড়িয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কখনও মুখ্যসচিব কখনওবা স্বরাষ্ট্রসচিবদের পাঠিয়েছেন বৈঠকে। বর্তমানে বাংলায় নির্বাচন চলছে। এরাজ্য়ে তৃণমূল ও বিজেপি যুযুধান দুই প্রবল প্রতিপক্ষ। বাংলায় প্রচারে এসে নিয়ম করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে তীব্র আক্রমণ শানাচ্ছেন মোদী। তৃণমূলের আমলে রাজ্য হিংসা ও অরাজকতা বেড়ে চলেছে বলে একের পর এক সভায় অভিযোগ তুলছেন মোদী। পাল্টা মোদীর বিরুদ্ধে রাজ্যজুড়ে প্রচারে ঝড় তুলেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও। মোদীকে বিঁধে একের পর এক মন্তব্য করছেন তৃণমূল সুপ্রিমোও। এই পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রীর মুখোমুখি হতে চাইছেন না মুখ্যমন্ত্রী।

রাজনৈতিক মহলের মতে, রাজ্যে নির্বাচন চলাকালীন মোদীর সঙ্গে বৈঠক এড়ানো তৃণমূল সুপ্রিমোর রাজনৈতিক ‘চাল’৷ ভোটের বাংলায় মোদী-বিরোধিতার মেজাজ জিইয়ে রাখতে চাইছেন তৃণমূল সুপ্রিমো৷ সেই কারণেই নির্বাচন চলাকালীন কিছুতেই তিনি মোদীর সঙ্গে বৈঠকে বসতে চাইছেন না৷ আজ সন্ধেয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠক করবেন৷ দেশের করেনা পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা হবে সেই বৈঠকে৷

লাগামছাড়া সংক্রমণ দেশে৷ গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ১ লক্ষ ২৬ হাজার ২৬৫ জন। দেশে মোট করোন অ্যাক্টিভ কেস বেড়ে ৯ লক্ষ ৫ হাজার ২১ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনার বলি ৬৮৪ জন। এখনও পর্যন্ত দেশে করোনায় মোট মৃতের সংখ্যা ১ লক্ষ ৬৬ হাজার ৮৬২ জন। দেশের মধ্যে সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ ছড়িয়েছে মহারাষ্ট্রে৷ গত ২৪ ঘণ্টায় মহারাষ্ট্রে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় ৬০হাজার৷ এই মুহুর্তে সেরাজ্যে করোনা অ্যাক্টিভ কেস ৫ লক্ষ ১ হাজার ৫৫৯ জন। সংক্রমণ কাঁপুনি ধরাচ্ছে বাণিজ্যনগরী মুম্বইয়ে। গত ২৪ ঘণ্টায় মুম্বইয়ে ১০ হাজার ৪৪২ জন নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। শুধু মুম্বই শহরেই এখনও পর্যন্ত ৪ লক্ষ ৮৩ হাজার ৪২ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।